শিবচরে স্বাস্থ্য খাতের সকল প্রকল্পে জনবল সংকট কাটাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে- স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে চীফ হুইপ লিটন চৌধুরীর সফর

শিব শংকর রবিদাস, মোহাম্মদ আলী মৃধা, মো: আবু জাফর ও মিঠুন রায় :
স্বাস্থ্য মন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন বলেছেন, শিবচরে স্বাস্থ্য খাতের সকল প্রকল্পে জনবল সংকট কাটাতে ডিজিসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে ।বুধবার দুপুরে মাদারীপুরের শিবচরে শেখ হাসিনা ইনষ্টিটিউট অব হেলথ এন্ড টেকনোলজি পরিদর্শন শেষে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময় সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা: সামন্ত লাল সেন এ কথা বলেন। এসময় জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ ও আওয়ামী লীগ সংসদীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক নূর-ই-আলম চৌধুরী, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা: রোকেয়া সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।
এদিন স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ অতিথিরা, পদ্মা সেতু সংযুক্ত ঢাকা খুলনা এক্সপ্রেস হাইওয়ে সংলগ্ন শিবচরের দত্তপাড়ায় ইলিয়াছ আহমেদ চৌধুরী ট্রমা সেন্টার, চৌধুরী ফিরোজা বেগম ২০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্র, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর কবর জিয়ারত , দত্তপাড়ার উত্তর তাজপুর কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন, সার্বজনীন শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ জিউর মন্দির পরিদর্শন,শিবচর ডায়াবেটিক সমিতি পরিদর্শন, ম্যাটস, মিডওয়াইফারী ইনষ্টিটিউট পরিদর্শন করেন।
এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব মুহাম্মদ আজিজুর রহমান, স্বাস্থ্য সেবা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আহমেদুল কবির, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ মোঃ টিটো মিঞা, স্বাস্থ্য ও প্রকৌশল অধিদপ্তরের চীফ ইঞ্জিনিয়ার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সরোয়ার হোসেন, মাদারীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মারুফুর রশিদ খান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শফিউর রহমান, হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ পরিচালক ডাঃ মাইনুল আহসান বাপ্পি, ঢাকা ডিভিশনের পরিচালক ডাঃ মোঃ জাফুরুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডাঃ ইকরাম হোসেন, শিবচর উপজেলা চেয়ারম্যান ডাঃ মোঃ সেলিম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ লতিফ মোল্লা, পৌরসভার মেয়র মোঃ আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ফাতেমা মাহজাবিন, আইএইচটির অধ্যক্ষ ডাঃ মোঃ মাসুদ রানা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
এসময় স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের অর্ধেক লোক বিদেশে চলে যায় কিন্তু সঠিক রোগ নির্নয় না হওয়ার কারনে। তারা দেখে এক জায়গায় এক রিপোর্ট আরেক জায়গায় আরেক রিপোর্ট। এগুলো চিন্তা করেই অনেকে বিদেশে চলে যায়। আমরা যদি টেকনোলজিষ্ট শক্ত করতে পারি তাহলে আমাদের সমস্ত রোগের ট্রিটমেন্ট এখানেই সম্ভব। রিপোর্ট যদি সঠিক না হয় তাহলে সঠিক চিকিৎসা কোন দিনই দেয়া সম্ভব না। তাই আমি তোমাদের (শিক্ষার্থীদের) অনুরোধ করবো তোমরা দেশের ভবিৎষত। এই দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে ভাল পর্যায়ে নিয়ে যেতে তোমাদেরই এগিয়ে আসতে হবে। আমি প্রথম দিন থেকে একটি কথা বলে আসছি যে প্রান্তিক জনগোষ্ঠির চিকিৎসা এটা আমাকে নিশ্চিত করতেই হবে। এই যে কত সুন্দর একটি ভবন। এখানে যদি আমি প্রত্যেকটি সার্ভিস ভাল করে দিতে পারি, রোগীদের ব্লাড প্রেসার, ডায়াবেটিস যদি ভাল করে পরিক্ষা করতে পারি তাহলে কিন্তু আমরা তাদেরকে সঠিক ঔষুধ দিয়ে চিকিৎসা করতে পারি। তাহলে এত বড় বড় হার্ট ডিজিস হবে না, বড় বড় ডায়ালেসিস এর দরকার হবে না। এখানেই তাদের চিকিৎসা হবে। আজকে ঢাকা মেডিকেল কিংবা হৃদরোগ হাসপাতালে মাটিতে পড়ে রোগী থাকে। এটা বন্ধ করতে হলে এখানেই চিকিৎসা করতে হবে। প্রত্যেকটি উপজেলাকে আমাদের স্বাবলম্বী করতে হবে। তাহলেই কিন্তু আমরা রোগীদের ঢাকা যাওয়া আমরা কমাতে পারবো।
স্বাস্থ্য মন্ত্রী আরো বলেন , আজকে আমি অত্যন্ত গর্বিত। শ্রদ্ধা মাননীয় চীফ হুইপের প্রতি। উনার যে পরিশ্রম, হাসপাতালের প্রতি তার যে একাত্মতা আমি মনে করি যে বাংলাদেশের প্রত্যেক সংসদ সদস্য যদি এভাবে হাসপাতালে আসে ব্লাড প্রেসার দেখায়, ডায়াবেটিস দেখায তাহলে ওই অঞ্চলের মানুষের আস্থা ফিরে আসবে। তারা আর ঢাকা যাবে না। বাংলাদেশের চিকিৎসকদের মান পৃথিবীর কোন দেশের চিকিৎসকদের মানের চেয়ে কম না।
চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে দুজন মন্ত্রী প্রতিমন্ত্রীকে স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্ব দিয়েছেন তাদের কঠোর পরিশ্রমে স্বাস্থ্য বিভাগ ঘুরে দাড়াবে। স্বাস্থ্য খাতে যে দূর্বলতা আছে আমাদের অনেক মানুষকে স্বাস্থ্যসেবার জন্য বিদেশ যেতে হয়। অনেকেই চিকিৎসা আর্ন্তজাতিকভাবে পাই না। মাননীয় মন্ত্রী প্রতিমন্ত্রীর মাধ্যমে ইনশাল্লাহ্ আমরা আন্তজার্তিক মানের শিক্ষা ব্যবস্থা পাবো।
স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা: রোকেয়া সুলতানা বলেন, আগে ভবন নয় আগে আমাদের দক্ষ জনবল প্রয়োজন। তা নাহলে শিক্ষার্থীদের অসুবিধা থেকেই যাবে। দক্ষরা যে সেবা দেশের মানুষের জন্য দিতে পারবেন অদক্ষরা তা পারবেন না ।