শিবচরে রাসেলস ভাইপার পিটিয়ে মারলো এলাকাবাসী

শিবচর বার্তা ডেক্স:
মাদারীপুরের শিবচরে বিষধর রাসেলস ভাইপার নামের একটি সাপকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে এলাকাবাসী। শনিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের হাজী কাইমুদ্দিন শিকদারেরকান্দী এলাকায় ফজলু মালের ধানখেতে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের হাজী কাইমুদ্দিন শিকদারেরকান্দী এলাকার কৃষক ফজলু মাল প্রতিদিনের মত সকালে তার ধানখেতে কাজে যান। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গুড়িগুড়ি বৃষ্টি শুরু হলে ফজলু তার জমি থেকে উঠতে গেলে খেতের আইলে একটি সাপ দেখতে পান। পরে তিনি আশেপাশের লোকজনকে ডাক দিলে সকলে গিয়ে বিষধর সাপটিকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলে। এ ঘটনায় পরে ফজলুর ফসলি জমিসহ আশেপাশের জমিতে সাপের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অনেকেই দল বেঁধে সাপ মারতে লাঠি নিয়ে জমিতে অভিযান চালাতেও দেখা গেছে।
রাসেলস ভাইপার সম্পর্কে কৃষক ফজলু মাল বলেন,‘ মানুষের উপস্থিতি টের পেলে যে কোন সাপ সরে যায়। আর আজ দেখলাম এই বিষধর সাপটি আক্রমণ করতে আসে। পরে গ্রামবাসির সহযোগিতায় সাপটিকে পিটিয়ে মারা হয়েছে।
রিপন শিকদার নামের আরেকজন কৃষক বলেন,‘ আমাদের গ্রামের এর আগেও এ রকম সাপ অনেকেই দেখেছে। পাহাড়ি সাপ ভেবে বিষয়টি নিয়ে তেমন ভয় পাইনি কেউ। তবে আজকে সাপটা মারার পরে ফেইসবুকের মাধ্যমে জানতে পেরেছি এটি বিষধর রাসেলস ভাইপার সাপ। সাপটি লম্বায় কমপক্ষে পাঁচফুট হবে। ধারণা করা হচ্ছে, পাশের আড়িয়াল খাঁ নদ থেকে সাপটি জমিতে ঢুকে পড়েছে। এই গ্রামে আরো এই ধরণের সাপ থাকতে পারে, তাই মানুষজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।
এখন পর্যন্ত মাদারীপুর জেলায় বিষধর এই সাপের কামড়ে কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। তবে সাপটি শিবচরের পদ্মার চরাঞ্চল, আড়িয়াল খাঁ নদ সংলগ্ন সদর উপজেলার পাঁচখোলা, রাস্তি ও খোয়াজপুর ইউনিয়ন ও কালকিনি উপজেলার নতুন টরকিসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে দেখা গেছে বলে গুঞ্জন রয়েছে।
বিষধর রাসেলস ভাইপার দেখে আতঙ্কিত না হয়ে সকলকে সচেতন ও সর্তক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন মাদারীপুর ২৫০ শয্যা জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক অখিল সরকার। তিনি বলেন, প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলে বিষধর সাপের উপদ্রব বাড়ে। তবে কয়েক বছর ধরে রাসেলস ভাইপার নামের এই বিষধর সাপটি সবচেয়ে বেশি ভয়ানক। কারণ এই সাপের কামড়ে বহু মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। তাই সকলকে আতঙ্কিত না হয়ে এই সাপ বা যে কোন বিষধর সাপ কাটলে ওঝা বা কবিরাজের কাছে না গিয়ে যত দ্রুত সম্ভব নিকটস্থ হাসপাতালে চলে আসুন। সাপে কাটার ভ্যাকসিন বা অ্যান্টিভেনম নিলেই আক্রান্ত রোগী সুস্থ্য হয়ে যাবে।
মাদারীপুর জেলা বন বিভাগের কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, শিবচরে একটি রাসেলস ভাইপার দেখা গেছে। পরে সেটি এলাকাবাসী পিটিয়ে মেরে ফেলে। সাপ বিষধর হলেও এটি বন্যপ্রাণী। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় কোন না কোন ভাবেই এর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তাই এটি নিধনের কোন সুযোগ নেই। সকলের সচেতনতা ও সর্তকতাই পারে সাপে কাটা রোধ করতে। তা ছাড়া একটি গুজব রয়েছে, এই সাপ কাটলে তার নিশ্চিত মৃত্যু। এটি আসলে সঠিক কথা নয়। সাপটি বিষধর তাই কাটা স্থানে কাপড় বা দঁড়ি দিয়ে বেঁধে দ্রুত হাসপাতালে যেতে হবে। হাসপাতালে সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসা হয় এবং রোগী সুস্থ হয়।