রাসেলস ভাইপার দংশনের পর হাসপাতালে এন্টিভেনম দিয়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন শিবচরের সুলতান

শিবচর বার্তা ডেক্সঃ
মাদারীপুরের শিবচরে এক কৃষককে ভয়ংকর রাসেল ভাইপার্স দংশনের পর দ্রুতগতিতে হাতে বাধন দিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে এন্টিভেনম দেয়ার পর সুস্থ্য হয়ে বাড়ি পৌছেছেন। বাড়িতে পৌছে সে স্বাভাবিক জীবনযাপন শুরু করে বৃহস্পতিবার হাটে গিয়েও বেচাকেনা করেন। সুলতান বেপারি নামের এ কৃষকের বেচে ফেরায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয়রা জানান, শিবচরের পদ্মার চরাঞ্চল চরজানাজাত ইউনিয়নের উত্তর চর জানাজাত এলাকার কৃষক সুলতান বেপারি (৫২) গত সোমবার দুপুরে নদীতে পাট জাগ দিতে যায়। পাট জাগ দেয়ার সুলতান বেপারীকে বিষধর সাপ (রাসেলস ভাইপার) সাপে কামড় দেয়। সাথে সাথে অন্য কৃষকরা সাপে কামড় খাওয়া সুলতান বেপারীর হাতে বাধন দেয় ও দ্রুত শিবচর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তাররা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখে নিশ্চিত হন আহত সুলতান বেপারীকে প্রকৃতই বিষধর সাপ রাসেলস ভাইবার সাপে কামড় দিয়েছে। এরপরে ডাক্তারদের একটি মেডিকেল বোর্ড তাৎক্ষণিক অসুস্থ রোগী সুলতান ব্যাপারীকে এন্টিভেনম দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করেন। প্রায় আড়াই ঘন্টা পর সুলতান সুস্থ হয়। এরপরও চিকিৎসকরা তাকে ২দিন পর্যবেক্ষনে রাখেন। বুধবার বিকেলে তাকে রিলিজ দেন চিকিৎসকরা। এরপর সে বাড়ি ফিরে যায়। বৃহস্পতিবার সুলতান মাদবরচর হাটে গিয়ে খাসি বিক্রি করেন ও বিভিন্ন জিনিসপত্র কিনেন।
সাপেকাটা রোগী সুলতান বেপারী জানান, পাট জাগ দিতে গিয়ে সাপে কামড় দেওয়ার আমি চিৎকার করি। পাশে থাকা অন্যান্য পরিচিত কৃষকদের সহযোগিতা চাই । সাপটি দেখেই আমি বুঝি ওটা রাসেলস ভাইপার। এরআগেও আমি অনেক মেরেছি। তারা আমার হাতে তিনটি তিনটি বাধ দিয়ে আমাকে দ্রুত শিবচর উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেকক্সে নিয়ে আসেন। পদ্মার চর এলাকার পানিতে ও শুকনোস্থানে এই সাপের উপদ্রব বেড়েছে। বেশ কিছুদিন ধরেই এই এলাকায় অনেক বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপার এর দেখা মিলেছে।
শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মো: ইব্রাহিম হোসেন সাপেকাটাদের সুলতানের মতো হাসপাতালে আসার জানান, সোমবার দুপুরে চরজানাজাত এলাকা থেকে রাসেল ভাইপারের কামড়ের রোগী কৃষক সুলতান বেপারী শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। হাসপাতালে আসার পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা যায় রোগী অনেক অসুস্থ ছিল। রোগী নিজেও দেখেছেন, সেই সাপটি ছিল রাসেলস ভাইবার সাপ। এরপর ডাক্তাররা মেডিকেল বোর্ড করে তাৎক্ষণিক সাপে কাটা রোগীকে পর্যবেক্ষন করে অ্যান্টিভেনম দেই। এন্টিভেনম দেওয়ার ২ আড়াই ঘন্টা পরে রোগী ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠেন। ২ দিন পর বাড়িতে পাঠাই।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল্লাহ্ আল মামুন বলেন, এটি খুবই ভাল খবর যে ওই কৃষক সাপে কাটার পর সেচতনভাবে হাসপাতালে আসে। আর হাসপাতালের টিম এন্টিভেনম দিয়ে তাকে সুস্থ করে বাড়ি পাঠিয়েছে। কেউ আতংকিত না হয়ে সাপে কাটলে ওঝা ফকিরের কাছে না গিয়ে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসবেন।