বরগুনায় সড়ক দূর্ঘটনা : শিবচরের ২ মেয়েসহ মা, চাচী, ফুপুসহ একই পরিবারের ৭ জনসহ নিহত ৯

শিব শংকর রবিদাস ও মো: আবু জাফর :
বরগুনার আমতলীতে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ৯ জনের মধ্যে ৭ জনই মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার ভদ্রাসন ইউনিয়নের সাহাপাড়া এলাকার একই পরিবারের সদস্য আত্মীয় স্বজন। নিহতরা একটি বৌভাত অনুষ্ঠানে যাচ্ছিল। শনিবার(২২ জুন) দুপুরে বরগুনা জেলার আমতলী এলাকার হলদিয়া – চাওড়া সীমান্তবর্তী চাওড়া হলদিয়া খালের ওপর লোহার ব্রিজ ভেঙে মাইক্রোবাস পানিতে পড়ে এ দূর্ঘটনা ঘটে। দূর্ঘটনায় নারী-শিশুসহ ৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বরগুনার আমতলিতে বোনের মেয়ে হুমায়রার বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ঢাকা থেকে যায় শিবচরের ভদ্রাসনের চরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ব্যাংক কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ , তার স্ত্রী টেলিটক চাকুরীজীবি মুন্নী বেগম (৪০), ২ মেয়ে তাহিয়া (৭), তাসফিহা(১১)। এরআগে বুধবার শিবচরের একই ইউনিয়নের সাহাপাড়া গ্রামের বোন ফরিদা বেগম(৪০), ভাবী ফাতেমা বেগম(৪০), ২ ভাগ্নে মাহাবুব খান , সোহেল খান, তার স্ত্রী রাইতি(৩০), রাইতির মা রুমি বেগমসহ (৪০) পরিবারের সদস্যরা ও আত্মীয় স্বজন ওই অনুষ্ঠানে যায়। শুক্রবার বিয়েতে সবাই অংশ নেয়। শনিবার এদেরসহ আত্মীয় স্বজন নিয়ে বৌভাতে অংশ নিতে যাওয়ার পথে দুপুরে বরগুনা জেলার আমতলী এলাকার হলদিয়া – চাওড়া সীমান্তবর্তী চাওড়া হলদিয়া খালের ওপর লোহার ব্রিজ ভেঙে মাইক্রোবাস পানিতে পড়ে যায়। এতে ব্যাংকার আবুল কালাম আজাদের স্ত্রী মুন্নী বেগম (৪০), ২ মেয়ে তাহিয়া (৭), তাসফিহা(১১) তার বড় ভাই বাবুল মাদবরের স্ত্রী ফাতেমা বেগম(৪০), বোন ফরিদা বেগম(৪০), ফরিদা বেগমের ছেলে সোহেল খানের স্ত্রী রাইতি বেগম(৩০) , রাইতির মা রুমি বেগম(৪০) নিহত হয়। এদের সবার বাড়ি ভদ্রাসনের সাহাপাড়া ও চর পাড়া গ্রামে। এছাড়াও এ দূর্ঘটনায় নিহতদের আত্মীয় এছাড়া বরগুনার আমতলীর দক্ষিণ তক্তাবুনিয়া জহিরুল ইসলামের স্ত্রী জাকিয়া এবং কন্যা রিদি(৫) মারা যায়।
এদিকে দুর্ঘটনার খবর গ্রামের বাড়িতে পৌছালে শোকের মাতম উঠে বাড়িতে। শোকে স্তদ্ধ হয়ে পড়ে গোটা এলাকা। এলাকাবাসী এসে ভিড় জমায় মাহাবুবুর রহমান সবুজের বাড়িতে।
নিহত ফাতেমা বেগমের স্বামী বাবুল মাদবর কাদতে কাদতে বলেন, আমার সব শেষ হয়ে গেল। ওরা বিয়ের আনন্দ করতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরছে। এই দুঃখ আমি কোথায় রাখি।
নিহত ফরিদা বেগমের ছেলে মাহাবুব খান ফোনে বলেন, আমরা বুধবার এসে শুক্রবার বিয়ে হয়। আজ বৌভাগে যাওয়ার পথে মর্মান্তিক এ দূর্ঘটনা ঘটে।
ভদ্রাসন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বেপারী বলেন,’ আমরা খবর পেয়েই বাড়িতে এসেছি। আসলে এতো বড় দূর্ঘটনায় আমরা বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছি। এখন তাদের মরদেহ বাড়িতে আনা হচ্ছে। রবিবার সকাল ৯টায় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।