মাদারীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতিতে অচলাবস্থা

শিবচর বার্তা ডেক্স:
বি আর ইবি ও পল্লী বিদ্যূত সমিতির কর্মকর্তা কর্মচারীদের চাকুরি বৈষম্য দুর করার দাবীতে দেশ ব্যাপী পল্লী বিদ্যূত সমিতির কর্মকর্তা কর্মচারীদের আন্দোলন আরো বেগবান হচ্ছে। চলছে টানা ১১তম দিনের কর্মবিরতি। ভোগান্তি বেড়েছে জনসাধারনের মধ্যে। মস্তফাপুর পল্লী বিদ্যূতের সমিতির ৫উপজেলার অভিযোগ কেন্দ্রসহ জরুরী গ্রাহক সেবার জন্য ব্যবহৃত কর্মচারীদের কাছে থাকা ২১টি স্মাট মোবাইল ফোন মস্তফাপুর পল্লী সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মোহাম্মদ জোনাব আলীর কাছে জমা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। এতে মাদারীপুর জেলার ৫ উজেলা ৩লাখ ৭০ হাজার বিদ্যূত গ্রাহকরা প্রকৃত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
আন্দোলনকারীরা জানান, অফিসের নিয়মিত কাজ ফেলে দাবী আদায়ের জন্য টানা নয়দিন ধরে চোখে কালো কাপড় বেধেঁ আন্দোলন করে যাচ্ছেন পল্লী বিদ্যূতের কর্মকর্তারা। কিন্ত প্রধানমন্ত্রী ও বিদ্যুৎ বিভাগের নির্দেশনা অমান্য করে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (পিডিবি) কর্তৃক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শোষণ, নির্যাতন, নিপীড়ন অব্যাহত রাখছে বলে দাবী করেন আন্দোলন কারীরা। পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) কর্তৃক সরবরাহকৃত পল্লী বিদ্যূতের গ্রাহক পর্যায়ে নিম্ন মানের মিটার সরবরাহ, নিম্ন মানের মালামাল ক্রয় করে মাঠ পর্যায়ে গ্রাহকদের ব্যবহার করতে দিচ্ছে। এতে করে পল্লী বিদ্যূতের গ্রাহকদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। বিআরইবি ও পল্লী বিদ্যূত সমিতির কর্মকর্তা কর্মচারীদের চাকুরি বৈষম্য দুর করার দাবী ও জনসাধারনের ভোগান্তি লাগব করতে দেশব্যাপী কর্মকতা কর্মচারীদের লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন পল্লী বিদ্যূত সমিতির কর্মচারীদের পক্ষ থেকে। দেশব্যাপী লাগাতার আন্দোলনের ১১তম দিনে মাদারীপুরের মস্তফাপুর পল্লী বিদ্যূত অফিসের অন্দোলনের কারনে অচলাবস্থা কাটেনি। এমনকি আন্দোলনের গতি আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে।
এতে করে স্মার্ট ও টেকসই বাংলাদেশ বির্নিমানে(বিআরইবি-পিবিএস) একীভুতকরনসহ অভিন্ন চাকরিবিধি বাস্তবায়ন ও সকল চুক্তিভিত্তিক অনিয়মিত কর্মচারীদের চাকরি নিয়মিত করনের দাবিতে পল্লী বিদ্যূত আন্দেলন চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দাবী তাদের।
তবে আন্দেলনকারীরা মাদারীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা কর্মচরীরা জানান, বিদ্যুৎ ব্যবস্থা সরবরাহ ও জরুরী গ্রাহক সেবা সচল রেখে কর্মবিরতি চালিয়ে যাচ্ছে। ৯বছরের চুক্তিভিত্তিক চাকুরীতে যোগদান করা সত্তেও তাদের দাবী চাকরী নিয়মিত করন করা হয় নাই। বর্তমানে কর্মরত সকল কর্মকর্ত কর্মচারীদের প্রমোশনসহ বিভিন্ন রকমের হয়রানি ২০১৫ সালের বেতন স্কেলসহ বিভিন্ন ধরনের প্রনেদনা এখনো পর্যন্ত দেয়নি বলে অভিযোগ করছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। বিদ্যুত বিল নিয়ে গ্রাহক পর্যায় যে অসন্তোষ গুলো রয়েছে তা একমাত্র নিম্ন মানের মিটারের জন্য বলে দাবী আন্দোলনকারীদের। সে ব্যাপারে অন্দোলনকারীরা বলেন- বিআরইবি ক্রয় কমিটির দ্বারা ক্রয়কৃত নিম্ন মানের মিটার ক্রয় করছে দীর্ঘদিন ধরে। আর এই নিম্ন মানের মিটারগুলো পল্লী বিদ্যূত সমিতির লোক দিয়ে মাঠ পর্যায়ে গ্রাহকদের কাছে পৌছাতে বা ব্যবহার করাতে বাধ্য করাচ্ছে। এই কারনে গ্রাহকদের ব্যবহৃত মিটারে ভূতরে বিল দিতে হচ্ছে গ্রাহকদের। প্রকৃত পক্ষে যে বিল হওয়ার কথা, তার চেয়ে অনেক গুন বেশি বিল আসে। আর এতে কওে মাঠ পর্যায়ে ঝামেলায় পড়ছেন পল্লী বিদ্যূত কর্মচারীরা।
মস্তফাপুর পল্লী সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মোহাম্মদ জোনাব আলী জানান, মস্তফাপুর পল্লী বিদ্যূতের সমিতির ৫উপজেলার অভিযোগ কেন্দ্রসহ জরুরী গ্রাহক সেবার জন্য ব্যবহৃত কর্মচারীদের কাছে থাকা ২১টি স্মাট মোবাইল ফোন জমা দিয়েছে কর্মচারীরা। কর্মকর্তা ও কর্মচালীরা আন্দেলন করছে গ্রাহকদেও জরুরি সেবা অব্যাহত রয়েছেন বলে দাবী করেন তিনি।