মাদারীপুরে মোটরসাইকেল চালক হত্যায় ২ জনের মৃত্যুদন্ডের আদেশ

মাদারীপুর প্রতিনিধি :
মাদারীপুরে ভাড়ায় চালিক মোটরসাইকেল চালককে হত্যার দায়ে দুই জন আসামীকে মৃত্যুদ-ের রায় দিয়েছে আদালত। সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মাদারীপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক লায়লাতুল ফেরদাউস এই রায় দেন। এসময় আদালতে দ-প্রাপ্তরা আসামীরা পলাতক ছিলো। রায়ে বাদী ও রাষ্ট্রপক্ষ সন্তোষপ্রকার করে দ্রত রায় বাস্তবায়নের দাবী করেন।
দ-প্রাপ্ত আসামীরা হলেন মাদারীপুর সদর উপজেলার পাঁচখোলা ইউনিয়নের পাঁচখোলা গ্রামের আউয়ালী বেপারীর ছেলে সজিব বেপারী (২৭) ও একই গ্রামের আব্দুল খানের ছেলে মিঠুন খান (৩১)।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, গেলো ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর মাদারপুর সদর উপজেলার রাস্তি ইউনিয়নের পূর্ব রাস্তি গ্রামের রবিউল মাতুব্বরের ছেলে বোরহান মাতুব্বর (১৮) জীবিকা নির্বাহের জন্যে ভাড়ায় একটি মটরসাইকেল নিয়ে বের হয়। এরপরে তাকে আর পাওয়া যায়নি। পরের দিন ১ জানুয়ারী সদর থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরী করা হয়। ২ জানুয়ারী বোরহানের মটরসাইকেলটিসহ সজীব বেপারী ও মিঠুন খানকে সাতক্ষীরা জেলার তালা থানায় আটক করা হয়। তাদের দেয়া স্বীকারোক্তিতে ২০১৫ সালের ৩ জানুয়ারী মাদারীপুরের আড়িয়াল খাঁ নদের কালিকাপুর উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা থেকে বোরহানের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় ওই দিনই সজীব বেপারী ও মিঠুন খানকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের পিতা বরিউল মাতুব্বর। ওই বছরের ১০ জুলাই তিনকে দোষী করে চার্জসীট দেন সদর থানার এসআই বারেক করিম খান। মামলায় ১৩ জন সাক্ষীর জবানবন্দি শেষে রায় দেয়া হয়। রায়ে সজিব বেপারী ও মিঠুন খানকে মৃত্যুদ- ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। তবে লাভলু গাজী নামে একজনকে খালাস দেয়া হয়। রায়ে নিহতের পিতা ও রাষ্ট্রপক্ষ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তবে দ-প্রাপ্ত দুই আসামী জামিনে এসে পলাতক রয়েছে।
এব্যাপারে মাদারীপুর দায়রা ও জজ আদালতের পিপি এ্যাড. সিদ্দিকুর রহমান সিং বলেন, ‘আসামীরা মাত্র এক লাখ টাকার একটি মটরসাইকেলের জন্যে একজন গরীব অসহায় পিতার সন্তানকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। এটা সমাজের জন্যে খুবই খারাপ ও নির্মম ঘটনা। ফলে আমরা রাষ্ট্রপক্ষ সবোচ্চ দিয়ে রায়টি করা চেষ্টা করেছি। ফলে দুই জনকেই ফাঁসির রায় দিয়েছে আদালত। এতে আমরা খুশি।’
মামলার বাদী নিহতের পিতা রবিউল মাতুব্বর বলেন, ‘আমার ছেলেকে যারা নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে, তাদের ফাঁসি দেয়ায় আমি আনন্দিত। তবে রায়টি যেন দ্রুত বাস্তবায়ন করা হয়, সেদিকে সরকারকে বিনয়ের সাথে অনুরোধ করবো।