মাদারীপুরে জোড়া খুনের ঘটনায় মামলা পাল্টা মামলায় এলাকা জনমানব শূন্য, ভাংচুর ও লুটপাট অব্যাহত

Rajoir News (2) 9.2

রাজৈর প্রতিনিধি :
মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার হরিদাসদী- মহেন্দ্রদী ইউনিয়নের উত্তর হোসেনপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জোড়া খুনের ঘটনার প্রায় ১ মাস অতিবাহিত হলেও প্রতিপক্ষের বাড়ীঘর জন-মানব শূন্য হয়ে পড়েছে। চলছে ভাংচুর ও লুটপাট। ঘরের মালামাল তো দুরের কথা জানালা দরজাগুলি পর্যন্ত খুলে নিয়ে গেছে সুবিধাবাদী লোকজনেরা। লুটপাটের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৪ টি মামলা হয়েছে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, আইনাল শেখের বাড়ীর প্রায় ১০টি ঘরে বড় ধরনের কোন মালামাল নেই। এমনকি বাথরুমের কমোট ও বেসিনগুলি ভেঙ্গে চুরমার করা হয়েছে। কোনটি বিল্ডিং আর টিনের ঘর -বোঝার উপায় নেই। সবগুলিরই দরজা ও জানালার পাল্লা পর্যন্ত খুলে নিয়ে গেছে খুন হওয়ার সুযোগে সুবিধাবাদীরা । টিউবওয়েলগুলির একটিরও মাথা নেই। অনেক খোজাখুজির পর ২/১ জন মহিলাকে পাওয়া গেল যারা আশেপাশে কোনরকম আত্মগোপন করে আছে। তাদের সাথে কথা বলে নারকীয় তান্ডবের বর্ননা জানা গেল। ৮ থেকে ১০ টি গরু লুটেরা নিয়ে গেছে। মাঝে মাঝে মহিলারা বাড়ীতে আসলে তাদের হুমকি দেয়া হয়। যাদের স্বামী বিদেশে থাকে তাদের কাছে হুমকি দিয়ে বলে তোর স্বামীর টাকা পাঠাতে বল নইলে ইজ্জত রক্ষা করতে পারবি না। জীবন রক্ষার্থে এবং মানসম্মানের ভয়ে নারী পুরুষ নির্বিশেষে এলাকা ছেড়ে এদিক ওদিক পালিয়ে বেড়াচ্ছে। উত্তর হোসেনপুর গ্রামের আইনাল শেখ, সরাজ খালাসী, নুর হোসেন মুন্সী,চাঁনপট্টি গ্রামের দেলোয়ার মুন্সী, সত্যবতী গ্রামের আবুল ঘরামী, গোলাম সৃষ্টি মাতুব্বরসহ অর্ধশতাধিক বাড়ীতে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে সুবিধাভোগীরা।
এ ব্যাপারে আইনাল শেখের স্ত্রী শ্যামলী বেগম জানান, খুন হওয়ার পর থেকেই জীবনের ভয়ে আমরা পালিয়ে বেড়াচ্ছি। আতিয়ার মেম্বার লোকজন নিয়ে আমাদের বাড়ীর সমস্ত মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে। এমনকি আমাদের ঘরের জানালা দরজাগুলি পর্যন্ত খুলে নিয়ে গেছে। এছাড়াও হুমকি দিচ্ছে বাড়ীতে এলে জীবনে শেষ করে দিবে। আমরা জীবনের ভয়ে ছেলে মেয়ে নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি।
হেমায়েত শেখের স্ত্রী নাজমা বেগম জানান, আমরা গরীব মানুষ। আমরা মারামারির সাথে যুক্ত নই। তবুও খুনের পরে আমাদের বাড়ীঘরে আতিয়ার মেম্বার লোকজন নিয়ে হামলা চালিয়ে সবকিছু নিয়ে গেছে। আমি জীবন ও মানসম্মানের ভয়ে মেয়ে নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। আমার মেয়েটা এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। বাড়ীঘর ছেড়ে অসহায়ের মত এদিক ওদিক থাকি।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আতিয়ার মেম্বার জানান, লুটপাটের ব্যাপারে আমি কিছু জানিনা। আমি আহত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ঢাকায় ছিলাম। আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আমার বিরুদ্ধে লুটপাটের মামলা দিয়েছে।
উল্লেখ্য এসংঘর্ষে উত্তর হোসেনপুর গ্রামের মজিদ মুন্সীর ছেলে বাবুল মুন্সী (৩৫) গত ১০ জানুয়ারী শুক্রবার দুপুরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় । এছাড়াও একই এলাকার মৃত রজব আলী খালাসীর ছেলে জুলফিকার খালাশী (৫৫) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার দিবাগত রাত ১ টার দিকে মারা যায়। এ ঘটনায় ৮৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ২০/২৫ জনের নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। এঘটনায় আরিফ খালাসী নামে হত্যা মামলার এক আসামীকে ঢাকার নবীনগর থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
রাজৈর থানার ওসি খোন্দকার শওকত জাহান জানান, লুটপাটের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৪ টি মামলা হয়েছে। এছাড়াও লুটপাট বন্ধ করতে আমাদের পুলিশ নিয়মিত টহল দিচ্ছে।

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার হরিদাসদী- মহেন্দ্রদী ইউনিয়নের উত্তর হোসেনপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জোড়া খুনের ঘটনার প্রায় ১ মাস অতিবাহিত হলেও প্রতিপক্ষের বাড়ীঘর জন-মানব শূন্য হয়ে পড়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates