দিনে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুট ব্যবহারের পরামর্শ বিআইডব্লিউটিসির

Shibchar Simuliya-kathalbari Ghonokuasa Story-5

সরেজমিন রিপোর্ট :
শীতের শুরুতেই শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটে ঘন কুয়াশার কারণে প্রায় দিনই ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রী ও ট্রাক শ্রমিকদের দূর্ভোগ সীমাহীন পর্যায়ে পৌছেছে। কাজে আসছে না ফেরির ফগলাইটগুলোও। আটকে থাকছে কাচামালবাহী ট্রাকসহ শত শত পন্যবাহী ট্রাক। দীর্ঘ সময় আটকে থেকে নদী পারের তীব্র কনকনে শীতে সীমাহীন দূর্ভোগে যাত্রী ও ট্রাক শ্রমিকরা। এমন পরিস্থিতিতে এ নৌরুট রাতের পরিবর্তে দিনে ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন বিআইডব্লিউটিসির কর্মকর্তারা।

বিআইডব্লিউটিসি, বিআইডব্লিউটিএসহ ঘাট সংশ্লিষ্ট একাধিক সুত্রে জানা যায়, শীতের শুরু থেকেই কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌ-রুটের ঘন কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচলে বিঘœ ঘটছে। নদীতে পর্যাপ্ত দিক নির্দেশনা বাতি না থাকায় ঘন কুয়াশার মধ্যে সঠিক দিক নির্ণয় করা সম্ভব হচ্ছে না। কাঁঠালবাড়ি ঘাট পদ্মা সেতুর পিলার হয়ে হাজরার লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট পর্যন্ত চ্যানেলটি অত্যন্ত সরু। রয়েছে নাব্যতা সংকট। এ চ্যানেলটি সচল রাখতে প্রায় ৭/৮টি ড্রেজার দিয়ে সবসময় নদী খননের কাজ চলছে। এ কুয়াশার মধ্যে ড্রেজারের সাথে ফেরি ও লঞ্চের সংঘর্ষের সম্ভাবনা থাকে। এই রুটে নদীতে নেই পর্যাপ্ত দিক নির্দেশনা বাতি, নেই ফেরিতে কার্যকর ফগ লাইট। ৩টি ফেরিতে ফগ লাইট থাকলেও তা কোন কাজে আসছে না। যে কারণে কুয়াশার সময় দূর্ঘটনা এড়াতে প্রায় প্রতিদিনই ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখছে কর্তৃপক্ষ। কুয়াশার দাপটে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১ টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ফেরি সার্ভিস বন্ধ ছিল। বুধবার রাতে বন্ধ ছিল ৩ ঘন্টা, বৃহস্পতিবার রাতে বন্ধ না থাকলেও শুক্রবার সকালে নদীতে কূয়াশা থাকায় ধারন ক্ষমতার কম যানবাহন নিয়ে ফেরিগুলো সতর্কতার সাথে পারাপার হয়। শনিবার ও রবিবার রাতেও ঘনকূয়াশায় ব্যহত হয় ফেরি চলাচল। এদিকে কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে হাজরা টার্নিং পয়েন্ট পর্যন্ত অসংখ্য ডুবচর এবং পাশেই খননকাজে অসংখ্য ড্রেজিং থাকায় এই রুটে ওয়ানওয়ে চলাচল করছে লঞ্চ ও ফেরিগুলো। ফলে কুয়াশার প্রকোপ বাড়তেই বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে নৌযান। একারণে ভূগান্তিতে পড়েছে লঞ্চ ও ফেরি চালক এবং যাত্রীরা। এ রুটের ৮৭টি লঞ্চ ১৫টি ফেরি ও দুই শতাধিক স্পিডবোড চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। বিশেষ করে ট্রাক শ্রমিকরা নদী পাড়ের কনকনে বাতাসে চরম কষ্ট পাচ্ছেন। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস ও পচনশীল ট্রাক পার করায় পন্যবাহী ট্রাক শ্রমিকদের দূর্ভোগ সীমাহীন পর্যায়ে পৌছেছে।
ট্রাক শ্রমিক আবুল কাশেম বলেন, ৩দিন ধরে ঘাটে আটকে আছি। কুয়াশায় ফেরি বন্ধ থাকে। চালু হলেই আগে বাস ও পচনশীল ট্রাক পার করা হয়। ফলে পন্যবাহী ট্রাক নিয়ে খুব ভোগান্তিতে আছি।
রো রো ফেরি শাহ পরানের মাস্টার ইনচার্জ মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, ফগ লাইট আমাদের ফেরিতে থাকলেও তা ঘনকুয়াশায় কাজে আসছে না। শুনেছি ফগলাইট ৬০ লাখ টাকা দিয়ে কেনা হয়েছে। নদীতে নাব্যতা সংকট ও ডুবোচর থাকায় আমরা ধারনক্ষমতার চেয়ে কম যানবাহন নিয়ে পারাপার হচ্ছি।
বিআইডব্লিউটিএর উপ পরিচালক আজগর আলী বলেন, পদ্মা নদীর নাব্যতা ধরে রাখতে ৮টি ড্রেজার কাজ করছে।
কাঠালবাড়ি ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী ঘাটের সার্জেন্ট আদেল আলী বলেন, ঘনকুয়াশার সময় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী পরিবহন ও কাচামালবাহী ট্রাক আগে পারাপার করা হয়।

শীতের শুরুতেই শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটে ঘন কুয়াশার কারণে প্রায় দিনই ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রী ও ট্রাক শ্রমিকদের দূর্ভোগ সীমাহীন পর্যায়ে পৌছেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates