‘পদ্মাপারে অলিম্পিক ভিলেজ গড়ার ঢাকে কাঠিও পড়েছে’-দৈনিক যুগান্তরে প্রকাশিত রিপোর্ট

Shibchar map

চারদিকে ঘন অন্ধকার। ফ্লাডলাইটের উজ্জ্বল আলো সেই অন্ধকার বিদীর্ণ করে আকাশ আলোকিত করছে। তারই মাঝে উসাইন বোল্টের মতো কোনো এক তারকার দৌড় কিংবা শারাপোভার মতো কোনো টেনিস সেনসেশনের নৈপুণ্যে বিমোহিত হবে লাখো মানুষ। পদ্মার পারে এমনই দৃশ্যের সূচনা হতে যাচ্ছে। কল্পনায় নয়, বাস্তবে। পদ্মা নদীর পার ঘেঁষে গড়ে উঠবে অলিম্পিক ভিলেজ। দেশের ক্রীড়াবিদদের মান বাড়াতে এবং পেশাদারিত্বের সঙ্গে গড়ে তুলতে অনন্য ভূমিকা পালন করবে এই ভিলেজ।

ব্রাজিলের রাজধানী রিও ডি জেনেরিও’র সিটি অব স্পোর্টস কমপ্লেক্স, লন্ডনের ইস্ট ভিলেজ, চীনের ছয়টি তলাবিশিষ্ট ১২টি বিল্ডিংসমৃদ্ধ স্পোর্টস ভিলেজ, আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ার্সের ইয়ুথ অলিম্পিক ভিলেজের মতো গড়ে তোলা হবে বাংলাদেশের অলিম্পিক ভিলেজ। গোধূলির আলোয় নৌকার দাঁড় টানার ছলাৎ ছলাৎ শব্দ। ঝাঁকে ঝাঁকে জালে ধরা পড়া

রুপালি ইলিশের চেনা আঁশটে গন্ধ। আর তার পাশেই ১০০ মিটার স্প্রিন্টের রেকর্ড ভাঙা-গড়ার কিংবা পোল ভল্টারদের সব রোমান্টিক শব্দকল্প। স্বপ্নের সঙ্গে বাস্তবের মেলবন্ধনের

জন্য ২৯ ডিসেম্বর যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সভায় বসছেন দেশের ক্রীড়া নীতি নির্ধারকরা। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে মাদারীপুরের শিবচর, ফরিদপুরের সদরপুর ও ভাঙ্গা উপজেলার কিছু অংশজুড়ে অলিম্পিক ভিলেজ নির্মাণের সমীক্ষা চালানো হয়েছে। প্রায় ১০ হাজার বিঘা জমির ওপর তৈরি করা হবে এই ক্রীড়া স্থাপনা।

 কী থাকছে অলিম্পিক ভিলেজে? এই কৌতূহল মেটানোর জন্য যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, ‘বিশ্বের যেসব দেশের অলিম্পিক ভিলেজ নির্মিত হয়েছে, বাংলাদেশের ভিলেজ তারচেয়ে কোনো অংশে পিছিয়ে থাকবে না।’ ভিলেজ সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পাওয়া যায় বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) তৈরি করা জমি ক্রয় সংক্রান্ত প্রস্তাবনায়। অলিম্পিক ভিলেজে শুধু যে সড়কপথেই যাওয়া যাবে তা নয়। আকাশ ও নৌপথেও যাতায়াতের ব্যবস্থা থাকছে। আড়িয়ালখাঁ সেতুর ওপর নির্মাণ করা হবে দৃষ্টিনন্দন ব্রিজ। থাকবে হেলিপ্যাড। ক্রীড়া ভেন্যুর পাশাপাশি তৈরি করা হবে অনুশীলন ভেন্যুও। ১০ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতাসম্পন্ন টেনিস কমপ্লেক্সের পরিকল্পনা রয়েছে। যেখানে অনুশীলনের জন্যও আলাদা কোর্টও থাকবে। সুইমিংপুলের পাশাপাশি ডাইভিং এবং ওয়াটার পলো খেলার ব্যবস্থাও থাকবে। ১০টি বাস্কেটবল মাঠ, তিনটি করে হকি, ক্রিকেট ও ফুটবল স্টেডিয়ামের সঙ্গে দুটি রাগবি মাঠ রয়েছে এই মহাপরিকল্পনায়। জুডো, কারাতে এবং তায়কোয়ান্ডোর জন্য ৩টি ইনডোর স্টেডিয়াম, দুটি জিমন্যাশিয়াম, ভারোত্তোলন ও কাবাডির জন্য দুটি পৃথক মাঠ এবং অ্যাথলেটিক্সের আলাদা ওয়ার্মআপ ট্র্যাক থাকবে।

ক্রীড়াবিদদের সুচিকিৎসায় দুটি কেন্দ্র, একটি আন্তর্জাতিক সম্প্রচার কেন্দ্র, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রোনিক্স মিডিয়ার জন্য, একটি অত্যাধুনিক তথ্য কেন্দ্র উপগ্রহ প্রাঙ্গণও নির্মাণ করা হবে অলিম্পিক ভিলেজের জন্য। ফুড এবং ড্রিংক ভিলেজের সঙ্গে তিনটি করে ডাইনিং হল, সেমিনার হল ও অডিটোরিয়াম থাকবে । প্রায় তিন হাজার গাড়ি পার্ক করার ব্যবস্থার পাশাপাশি দু’হাজার অতিথির জন্য পাঁচ তারকা হোটেল নির্মাণ করা হবে। দুটি করে স্কুল ও কলেজের সঙ্গে মার্কেট ও বিনোদন পার্কের ব্যবস্থা থাকবে।

প্রস্তাবিত অলিম্পিক ভিলেজের ৩৩০৭ একর জমির মধ্যে মাদারীপুরের শিবচরে রয়েছে ২৪০৭.১৫ একর। ফরিদপুরের সদরপুরে ৮৯৩.৬৭একর এবং ভাঙ্গায় রয়েছে ৬.৯৮ একর। এই জমির ক্রয় মূল্য প্রায় চার হাজার কোটি টাকা।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, ‘শুধু স্বপ্ন নয়, পদ্মাপাড়ে অলিম্পিক ভিলেজ গড়ার ঢাকে কাঠিও পড়েছে। কাজ একবার শুরু হলে বেশি সময় লাগবে না। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এটা কোনো ছোটখাটো ভিলেজ হবে না। অত্যাধুনিক আন্তর্জাতিকমানের সুযোগ-সুবিধা নিয়েই ভিলেজ করব আমরা। পাশে পদ্মা। এটাই আমাদের স্বপ্ন।’ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘পদ্মার তীরে অলিম্পিক ভিলেজ হলে তা পর্যটক টানবে বলে মনে করি আমি। খেলা দেখার পর মাঝিদের সঙ্গে পদ্মায় নৌবিহারে বেরিয়ে পড়লেই হল। পাশাপাশি ইলিশ দিয়ে রসনাতৃপ্তির ব্যাপারটা তো আছেই।’

যা যা থাকবে অলিম্পিক ভিলেজে

* আড়িয়ালখাঁ সেতুর ওপর ব্রিজ

* দু’টি হেলিপ্যাড

* ওয়ার্মআপ ট্র্যাক

* টেনিস মাঠ (৩, ৫ ১০ হাজার সিট/গ্যালারি/অনুশীলন মাঠ)

* সুইমিংপুল-ডাইভিং এবং ওয়াটার পলো

* ১০টি বাস্কেটবল মাঠ

* তিনটি হকি স্টেডিয়াম

* তিনটি ক্রিকেট স্টেডিয়াম

* তিনটি ফুটবল স্টেডিয়াম

* দুটি রাগবি মাঠ

* তিনটি ইনডোর স্টেডিয়াম (জুডো/কারাতে/তায়কোয়ান্ডো)

* দু’টি ভারোত্তোলন ও কাবাডি স্টেডিয়াম

* দু’টি জিমন্যাশিয়াম

* দু’টি চিকিৎসা কেন্দ্র

* একটি আন্তর্জাতিক সম্প্রচার কেন্দ্র

* একটি মিডিয়া এবং প্রিন্টিং

* একটি উপগ্রহ প্রাঙ্গণ

* একটি ফুড এবং ড্রিংক ভিলেজ

* তিনটি ডাইনিং হল

* তিনটি সেমিনার হল

* তিনটি অডিটোরিয়াম

* পার্কিং এলাকা (৩০০০ গাড়ি রাখার ব্যবস্থা সম্পন্ন)

* অতিথিদের জন্য হোটেল (২০০০ জন থাকার মতো ব্যবস্থাসম্পন্ন)

* দু’টি ক্রীড়া বিশ্ববিদ্যালয়

অন্যান্য সুবিধা

* দু’টি স্কুল

* দু’টি কলেজ

* দু’টি আবাসিক হল (২০০০ পরিবারের জন্য)

* দু’টি মার্কেট

* একটি বিনোদন পার্ক

* চাহিদা অনুযায়ী অন্যান্য

নাগরিক সুবিধাদি

জমির পরিমাণ

* মাদারীপুর (শিবচর)

২৪০৭.১৫ একর

* ফরিদপুর (সদরপুর)

৮৯৩.৬৭ একর

* ফরিদপুর (ভাঙ্গা) ৬.৯৮ একর

মোট জমি ৩৩০৭.৮০ একর

পদ্মা নদীর পার ঘেঁষে গড়ে উঠবে অলিম্পিক ভিলেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates