রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের শিবচর মুক্ত দিবস আজ,মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষনে উপজেলাটি দৃষ্টান্ত

Shibchar Probahoman-71 (2)Shibchar Probahoman-71-3 Shibchar Sadhinota sriti stomvo

বিশেষ রিপোর্টঃ
২৫ নভেম্বর শিবচর মুক্ত দিবস আজ। রক্তক্ষয়ী এক যুদ্ধের মধ্য দিয়ে শিবচর হানাদার মুক্ত হয়। সম্মুখ এ যুদ্ধে ৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।১৮ জন ঘাতক হানাদার ও রাজাকার নিহত হয়। মুক্ত দিবসসহ মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষনে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মরহুম ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর সন্তান জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় শিবচর আজ দৃষ্টান্ত। উপজেলাজুড়ে মুক্তিযুদ্ধের অসংখ্য মুড়্যাল, ভাস্কর্যসহ নানান স্থাপনা শিবচরকে উদাহরন হিসেবে গন্য করা হয় সারাদেশে।
জানা যায়, ১৯৭১ সালের মে মাসে দু ’ দফা হানাদার বাহিনী স্থানীয় রাজাকার দোষরদের নিয়ে শিবচরের ৩০ জন নিরীহ নারী পুরুষকে হত্যাসহ ধর্ষন, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে ও স্থানীয় থানায় ঘাটি গাড়ে। তৎকালীন প্রাদেশিক সরকারের এমপি মুজিব বাহিনীর কোষাধ্যক্ষ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর(দাদাভাই) নির্দেশনায় সারাদেশের মতো শিবচরের মুক্তিযোদ্ধারাও ভারতে প্রশিক্ষন শেষে এসে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। দাদাভাই এর বাড়িও কয়েক দফা অগ্নিসংযোগ লুটপাট চালায় হানাদার বাহিনী। ৭১ সালের সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে মুক্তিযোদ্ধারা শিবচর বাজারে অবস্থিত হানাদার বাহিনীর ক্যাম্প গুড়িয়ে দেয়। এরপর থেকেই হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা খুন , ধর্ষন,জ্বালানো-পোড়ানো বাড়িয়ে দেয়। ২৪ নভেম্বর রাত ৩টায় এরিয়া কমান্ডার মোঃ মোসলেমউদ্দিন খানের নেতৃত্বে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারাসহ ভাঙ্গা ও সদরপুর থানার মুক্তিযোদ্ধারা হানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের আশ্রয়স্থল ’শিবচর থানা’ মুক্ত অপারেশন শুরু করে। থানা কমন্ডার শামচুল আলম খানের নেতৃত্বে পূর্ব দিক দিয়ে ,রেজাউল করিম তালুকদারের নেতৃত্বে উত্তর দিক দিয়ে, শাহনেওয়াজ তোতার নেতৃত্বে দক্ষিন দিক দিয়ে ও রেজাউল করিম তারা গোমস্তার নেতৃত্বে পশ্চিম দিক দিয়ে প্রায় ১শত ৭৫ জন মুক্তিযোদ্ধা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন। প্রায় ১৬ ঘন্টা স্থায়ী যুদ্ধে ২৫ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টায় হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পন করে। সম্মুখ এ যুদ্ধে শিবচরের আঃ ছালাম, ভাঙ্গার মোশাররফ হোসেন ,সদরপুরের দেলোয়ার হোসেন ও সহযোগী ১১ বছর বয়সের কিশোর ইস্কান্দারসহ ৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। যুদ্ধে ছালাম খান ,ওহাব মুন্সী, মজিদ হাওলাদার ,খোকন মুন্সী সহ আরো অনেক বীর মুক্তিযোদ্ধা গুরুতর আহত হন। যুদ্ধে ১৮ জন ঘাতক হানাদার ও রাজাকার নিহত হয়।
মহান মুক্তিযুদ্ধে শিবচর উপজেলার বীর সন্তানদের রয়েছে অনন্য অবদান। তৎকালীন প্রাদেশিক সরকারের এমপি বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী দাদাভাই ছিলেন মুজিব বাহিনীর কোষাধ্যক্ষ ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। তার দিক নির্দেশনাতেই শিবচর থেকে পাশ^বর্ত্তী ৯ উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা হয়। মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষনে মরহুম ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী দাদাভাই এর বড় ছেলে চীফ হুইপ ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সংসদীয় দলের সাধারন সম্পাদক নূর-ই-আলম চৌধুরীর নানান উদ্যোগ দেশে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে। উপজেলাটিতে ঢুকতেই একের পর এক সেতু লাল সবুজের রংয়ে ঢাকা। বঙ্গবন্ধুর বড় বোন চৌধুরী ফাতেমা বেগম পৌর অডিটোরিয়ামের সামনে নির্মান করা হয়েছে পানির ফোয়ারার মাঝে নৌকায় চড়ে একদল মাজায় শাড়ী গোঝা নারী লুঙ্গী কাছা দেয়া – খালি গায়ে পুরুষ মুক্তিযোদ্ধাদের ’ প্রবাহমান ৭১ ভাস্কর্য’টি। কলেজ মোড়ে অস্ত্র তাক করে ’স্বাধীনতা স্তম্ভে’র দাড়িয়ে আছে বীর সেনানীরা। পৌরবাজারে দীর্ঘ একটি সড়ক নামকরন করা হয়েছে সড়ক -৭১ নামে। যেখানে লাল সবুজ রংয়ে সজ্জিত শতাধিক দোকানও রয়েছে। ৭১ সড়কে প্রবেশমুখেই নির্মান করা হয়েছে শহীদ বুদ্ধিজীবি স্মৃতি স্তম্ভ। উপজেলা পরিষদের সামনে নির্মান করা হয়েছে ’মুক্তবাংলা’ নামের অস্ত্র তাক করে পাহাড়ে যুদ্ধরত অবস্থায় দাড়িয়ে থাকা একদল মুক্তিযোদ্ধাদের ভাস্কর্য। শহীদদের কবরের পাশে তৈরি করা হয়েছে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্তম্ভ। যেখানে স্থানীয় ১৩ জন শহীদদের নামসহ যুদ্ধের ইতিহাস বর্ননা করা হয়েছে। শেখ ফজিলাতুন্নেছা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নির্মান করা হয়েছে শেখ ফজিলাতুন্নেছার এক অসাধারন ভাস্কর্য। ৭১ চত্ত্বর, বিজয় চত্ত্বর, বরহামগঞ্জ চত্ত্বর, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সভবনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মান করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু,শেখ হাসিনা, দাদাভাই মুর‌্যালসহ অসংখ্য মুর‌্যাল। যার প্রায় সবগুলোই নূর-ই আলম চৌধুরীর নিজস্ব তহবিল থেকে অর্থ ব্যয় করে নির্মান করা হয়েছে। ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী দাদাভাইয়ের নামে তোড়ন নির্মানের মধ্য দিয়ে ১৯৯৬ এ কর্মযজ্ঞ শুরু করেছিলেন সংসদ সদস্য। একেকটি ভাস্কর্য, মুর‌্যালই মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বহন করে। বিভিন্ন রাস্তা ঘাট শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামকরন, স্কুলের বিভিন্ন ভবন মুক্তিযোদ্ধাদের নামকরন, বিভিন্ন সেতু মুক্তিযোদ্ধাদের নামকরন রয়েছে অহরহ। বিভিন্ন বাজারের দোকানপাটও লাল সবুজ সাজে সজ্জিত। সবমিলিয়ে এ যেন জাতীয় পতাকার লাল সবুজের সমারোহ ও ভাস্কর্য সমৃদ্ধ এক উপজেলা।এসকল স্মৃতি স্তম্ভে স্ব স্ব দিবসে শিক্ষার্থীসহ সাধারন মানুষ শ্রদ্ধা জানানোয় প্রসার ঘটছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষনে সারাদেশে শিবচরকে মডেল গন্য করার দাবী বীর মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সাধারন জনগনসহ সকলের।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার শাজাহান চৌধুরী জানান, শিবচর মুক্ত দিবসে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে।
আওয়ামীলীগ জাতীয় কমিটির সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধকালীন সাত থানা মুক্তিযোদ্ধা এরিয়া কমান্ডার মোসলেমউদ্দিন খান বলেন, আমাদের সংসদ সদস্য যেভাবে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষন করছেন তাতে আমরা গর্বিত।
উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সামসুদ্দিন খান বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মরহুম ইলিয়াস আহম্মেদ চৌধুরীর (দাদাভাই) সন্তান আমাদের সংসদ সদস্য মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষনে যে উদ্যোগ তা শিবচরের গনহত্যা,মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তদিবসের স্মৃতি সংরক্ষনে বিরল।
জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মুনির চৌধুরী বলেন, চীফ হুইপ লিটন চৌধুরীর শিবচরের আদলে বাংলাদেশকে সাজিয়ে তোলা দরকার। তাহলেই এ দেশটি মুক্তিযুদ্ধময় হবে। শিবচর ও লিটন চৌধুরী আজ সারাদেশে এক দৃষ্টান্ত।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, আমি দেশের অনেক স্থানে দায়িত্ব পালন করেছি। তার মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষনে শিবচরকে আমার কাছে ব্যতিক্রম মনে হয়েছে। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে চীফ হুইপের এ দেশপ্রেম সত্যি বিরল।

২৫ নভেম্বর শিবচর মুক্ত দিবস আজ। রক্তক্ষয়ী এক যুদ্ধের মধ্য দিয়ে শিবচর হানাদার মুক্ত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates