এই পেয়াজই ৮-১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে বাধ্য হয় শিবচরের কৃষক !

Shibchar Orion High Rate-3Shibchar Orion High Rate-1Shibchar Orion High Rate-4

সরেজমিন রিপোর্ট :
কৃষক ইসকান দড়ি (৭০) বাজারের এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্ত থেকে ঘুরছেন একটু কমদামে পেয়াজ কেনার জন্য । কিন্তু খেটে খাওয়া কৃষকের নির্বাক চাহনিতে মেলেনি কম দামে পেয়াজ। অথচ এই কৃষক মৌসুমের শুরুতে ৮-১০ টাকা দরে পেয়াজ বিক্রি করতে বাধ্য হয়। কিছুদিন রেখে সেই ১৮-২০ টাকায় বেচলেও চালান উঠেনি। অথচ এখন তাকেই কিনতে হচ্ছে ১শ ৩০ টাকার বেশি দরে। ৫-৬ মাস আগে যে পেয়াজ ৮-১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি বাধ্য হয়েছিল কৃষক সেই পেয়াজই এখন ১শ৩০ টাকারও বেশি । অিনুসন্ধানে বের হয়ে আসে কৃষি নিয়ে দেশে সুদুরপ্রসারী পরিকল্পনার অভাব, অঞ্চল ভিত্তিক ফসল সংরক্ষনাগার বা কোল্ড স্টোরেজ না থাকা ও বাজার ব্যবস্থাপনার অভাবই কৃষকের হাত শুন্য থাকার জন্য মূল দায়ী। যার ফলে ভুক্তভোগী কৃষকসহ সাধারন মানুষ।
সরেজমিন একাধিক সূত্রে জানা যায়, অসংখ্য নদ-নদী খাল বিল সমৃদ্ধ মাদারীপুরের শিবচর, শরীয়তপুর, ফরিদপুরসহ বৃহত্তর ফরিদপুরের কৃষি জমিতে প্রতি বর্ষায় পর্যাপ্ত পলি পড়ে। ফলে প্রতিবছরই বাম্পার ও সুস্বাদু পেয়াজ রসুন টমেটো শাক সবজিসহ রবি শষ্য উৎপাদন হয়। কিন্তু উৎপাদন মৌসুমে সংরক্ষনের অভাবে কৃষক পেয়াজ পানির দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয়। গত বছর জেলার ৪ উপজেলায় প্রায় ৪হাজার ১ শ হেক্টর জমিতে পেয়াজ আবাদ হয়ে ৯০ হাজার মে.টন পেয়াজ উৎপাদন হয়। এর মধ্যে শিবচরেই প্রায় ৩ হাজার হেক্টর জমিতে পেয়াজ উৎপাদন হয়। কিন্তু পচনশীল এ পন্য শুধুমাত্র সংরক্ষনের অভাবে পানির দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয় এ অঞ্চলের কৃষক। উৎপদান মৌসুমে খুচরা বাজারে পেয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮-১০ টাকা। রসুনের দাম আরো নি¤œমুখী ছিল। দাম কম থাকায় ও সংরক্ষনাগরের অভাবে পেয়াজ উত্তোলন না করায় বৃষ্টিতে মাঠেই পচে বিপুল পরিমান পেয়াজ রসুন সবজিসহ রবি শষ্য। বৃষ্টিতে ক্ষতির পরিমান দাড়ায় ১০-১২ কোটি টাকা। এছাড়াও অনেকেই বাড়িতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ফসল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। অনুকুল পরিবেশের ফলে উৎপাদনও হয়েছিল বাম্পার। কিন্তু ভাল ও উন্নতমানের ফসল ফলিয়েই কৃষক পড়েছিল চরম বিপাকে। মাদারীপুরের শিবচরসহ অত্র অঞ্চলে পেয়াজসহ সবজি সংরক্ষনে কোন সংরক্ষনাগার বা কোল্ড স্টোর না থাকায় কৃষক পানির দরেই বিক্রি করতে বাধ্য হয় কষ্টার্জিত ফসল। ভরা মৌসুমেও ভারতে থেকে অবাধে পেয়াজ আসায় দাম ছিল খুই নি¤œমুখী। বাজার ব্যবস্থাপনার অভাব ছিল স্পষ্ট।
শিবচর বাজারের সবজ¦ী ব্যবসায়ী রুহুল আমিন বলেন, বর্তমানে পেয়াজ কেজি প্রতি ১ শ ২৫ টাকায় ক্রয় করে ১ শ ৩০ টাকায় বিক্রি করি। এই পেয়াজ এক দেড় মাস আগে কেজি ছিল ৩০-৪০ টাকা। এক দেড় মাসের মধ্যে কয়েক দফা দাম বেড়েছে। আমরা যেমন কিনি তেমনি বিক্রি করি।
আরেক ব্যবসায়ী মোতাহার বলেন, কয়েক মাস আগে যখন আমাদের অঞ্চলের পেয়াজ উঠেছিল তখন বাজারে কৃষকরা ১০-১৫ টাকা কেজিতে পেয়াজ বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছিল। তখন যদি পেয়াজ সংরক্ষন করে বা কোল্ড স্টোরে রাখা যেত তাহলে এখন পেয়াজের দাম এত বাড়তো না। সারা বছরই কম দামে পেয়াজ খাওয়া যেত।
কৃষক ইসকান দড়ি বলেন, আমি এক বিঘা পেয়াজ চাষ করেছিলাম। দিন মজুর নিয়ে যখন পেয়াজ ক্ষেত থেকে তুললাম তখন বাজারে পেয়াজ কেজি প্রতি ৮-১০ টাকা দাম। আমি কয়েক দিন অপেক্ষা করে ঢাকার শ্যামবাজারে পেয়াজ নিয়ে ১৬-১৮ টাকায় কেজি বিক্রি করেছিলাম। তাতেও আমার চালান উঠেনি। আমার মত সকল কৃষকই গত বছর পেয়াজে লস খেয়েছে। আজ বাজার থেকে ১ শ ৩০ টাকা কেজিতে খাওয়ার জন্য পিয়াজ কিনলাম। যে পেয়াজ ১৮ টাকায় বিক্রি করলাম সেই পেয়াজই আজ ১ শ ৩০ টাকায় কিনতে হলো। যদি আমাদের অঞ্চলে কোল্ড স্টোর থাকতো তাহলে পেয়াজ সংরক্ষন করে রাখতে পারতাম। আমরাও লসে পড়তাম না আর সকল মানুষই কম দামে পেয়াজ কিনতে পারতো।
শিবচর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা কৃষিবিদ অনুপম রায় বলেন, এ অঞ্চলে খুব ভাল মানের পেয়াজ উৎপাদন হয়। তবে পেয়াজ উত্তোলন মৌসুমে বেশি পরিমান আমদানী থাকায় কৃষকরা কম দামে পেয়াজ বিক্রি করতে বাধ্য হয়। অনেক কৃষক লোকসানের মুখেও পড়েন। এ জন্য কৃষক ও কৃষিকে বাচাতে অঞ্চল ভিত্তিক সংরক্ষনাগার বা কোল্ড স্টোর নির্মান করা প্রয়োজন।

কৃষক ইসকান দড়ি (৭০) বাজারের এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্ত থেকে ঘুরছেন একটু কমদামে পেয়াজ কেনার জন্য । কিন্তু খেটে খাওয়া কৃষকের নির্বাক চাহনিতে মেলেনি কম দামে পেয়াজ। অথচ এই কৃষক মৌসুমের শুরুতে ৮-১০ টাকা দরে পেয়াজ বিক্রি করতে বাধ্য হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates