তন্ত্রবায়ের সম্পত্তি বিক্রি করে ৩০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ : মাদারীপুরে বিচার দাবীতে তাঁতীদের বৃহৎ আন্দোলনের ঘোষণা

Madaripur Picture 04.11.2019 (1)

সুবল বিশ্বাস :
মাদারীপুরে “দি মাদারীপুর সাব ডিভিশন কো-অপারেটিভ ইন্ডাষ্ট্রিয়াল ইউনিয়ন লিমিটেড” নামের তন্ত্রবায় সমবায় সমিতির সম্পত্তি বিক্রি করে প্রায় ৩০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগ সমিতির সভাপতি হাজী আব্দুল বাকী মিয়া ও রাজৈর উপজেলার বদরপাশা তন্ত্রবায় সমবায় সমিতির পরিচালক মোঃ রফিকুল ইসলাম বাচ্চুর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ তাঁতীরা প্রতিবাদ ও বিচার দাবীতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ করাসহ বৃহৎ আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন। পাশাপাশি আদালতের আশ্রয় নেওয়ার কথাও বলেছেন প্রতিকার কমিটির নেতারা। আন্দোলনের অংশ হিসেবে রবিবার রাজৈর উপজেলা চত্তরে কর্মসূচি পালন শেষে রাজৈর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে স্মারকলিলিপি প্রদান করেন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এ্যাড. রফিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান, শাহ আলম ও প্রতিকার কমিটির সভাপতি মুন্সী আবদুর রশিদ।
অভিযোগে জানা গেছে, ১৯৪৭ সালে মাদারীপুর শহরের পুরান বাজার এলাকায় “দি মাদারীপুর সাব ডিভিশন কো-অপারেটিভ ইন্ডাষ্ট্রিয়াল ইউনিয়ন লিমিটেড” তন্ত্রবায় সমবায় সমিতি প্রতিষ্ঠিত হয়। তখন ৬৯ শতাংশ জায়গা ক্রয় করে আধাপাকা অবকাঠামো নির্মাণ করে। ১৯৮৮ সালে টেকেরহাটের আবদুল বাকী মিয়া সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন। তিন বছর মেয়াদী এ কমিটি মেয়াদ শেষ হলে তার এক ভাই রুহুল আমীন বেপারী সভাপতি হন। এর মেয়াদ শেষে কৌশলে তারই ছোট ভাই হাবিব বেপারীকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। সর্বশেষ একই কায়দায় সাবেক সভাপতি বাকী মিয়া পুনরায় সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন। ঘুরে ফিরে একই ঘরের মধ্যে আপন তিনভাই সভাপতি নির্বাচিত হয়ে আসছে। এভাবে কেটে গেছে দীর্ঘ ৩২ বছর। চলমান সভাপতি বাকী মিয়া ২০১৭ সালে নিজেরা যোগসাজসে একটি পকেট কমিটি গঠন করেন। এরপরে তন্ত্রবায়ের ৬০ শতাংশ সম্পত্তি প্রায় ৩০ কোটি টাকা বিক্রি করে সম্পূর্ণ টাকা আত্মসাত করেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। এ আত্মসাতের ঘটনা প্রকাশ পাওয়ায় তাঁতী সম্প্রদায় বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে এবং তীব্র প্রতিবাদ জানায়। এক পর্যায়ে সভাপতি হাজী আব্দুল বাকী মিয়া টেকেরহাটে তার নিজস্ব ৬ শতাংশ জায়গা সমিতির নামে দলিল করে দেন এবং সেখানে একটি অফিস নির্মাণ করে। উল্লেখ্য, পূর্বে তন্ত্রবায় সমবায় সমিতির অধীনে তাঁতী সম্প্রদায়ের ৯৬টি সমিতিতে ২ হাজার সদস্য ছিল। সভাপতি আবদুল বাকী মিয়া নিজের আখের গোছানোর কারণে বহু সমিতির নাম বাদ দিয়ে বর্তমানে মাত্র ১২টি সমিতির কার্যক্রম চলছে।
রাজৈর প্রতিকার কমিটির সভাপতি মুন্সী আবদুর রশিদ বলেন, “বর্তমানে ওই সম্পত্তির দাম প্রায় ৫০ কোটি টাকা। ওরা ভাইয়েরা মিলে আমাদের না জানিয়ে সম্পত্তি বিক্রি করেছে। তাদের উদ্দেশ্য ছিলো টাকা আত্মসাত করা। আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবো। প্রয়োজনে আমরা আদালতের আশ্রয় নেবো।”
এ ব্যাপারে মাদারীপুর জেলা সমবায় কর্মকর্তা মোঃ হারুন-অর রশিদ বলেন, “মন্ত্রনালয়ের অনুমোদন না নিয়ে জমি বিক্রি করা হয়েছে। এব্যাপারে অভিযোগ উঠলে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় এবং তদন্ত অব্যাহত আছে।” এদিকে সভাপতি আবদুল বাকী মিয়া আর,এফ,এল, কোম্পানীর সৌজন্যে সিঙ্গাপুর অবস্থান করায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
রাজৈর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহানা নাসরিন বলেন, “স্মারকলিপি পেয়েছি, বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে।”

মাদারীপুরে “দি মাদারীপুর সাব ডিভিশন কো-অপারেটিভ ইন্ডাষ্ট্রিয়াল ইউনিয়ন লিমিটেড” নামের তন্ত্রবায় সমবায় সমিতির সম্পত্তি বিক্রি করে প্রায় ৩০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates