কৌশল পরিবর্তন করে রাত নামতেই পদ্মায় ইলিশ নিধন উৎসব! চরের কাশবনে মজুদ, বিক্রির ধুম -চলছে অভিযান

Shibchar Elish Nidhon-3 Shibchar Elish Nidhon-5

সরেজমিন বিশেষ রিপোর্ট
প্রতিনিয়ত প্রশাসন অভিযান চালিয়ে ইলিশ শিকারীদের জেল-জরিমানা করলেও থামেনি  দৌরাত্ম । সন্ধ্যার পর রাত নামতেই ভোররাত পর্যন্ত পদ্মা জুড়ে চলছে ইলিশ নিধন যজ্ঞ। লোকচক্ষু আড়াল করতে ট্রলারগুলোতে কোন আলোক বাতি ব্যবহার করছেন না অসাধু জেলেরা। ইলিশ মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞার মাঝে এভাবেই নতুন কৌশলে ইলিশ নিধন চলছে মাদারীপুরের শিবচর, শরীয়তপুরের জাজিরা, মুন্সীগঞ্জের লৌহজং, ঢাকার দোহার, ফরিদপুরের সদরপুর অংশের পদ্মা নদীতে। আর এই মাছ নদীর চরে রেখেই মুঠোফোনের মাধ্যমে ও নদী পাড়ের প্রত্যন্ত বাজার বিক্রি হচ্ছে। ঘটেছে ভ্রাম্যমান আদালতের উপর হামলার ঘটনাও। তবে এক অভিযানে নতুন এ কৌশল ধরা পড়েছে শিবচরের প্রশাসন ও পুলিশের হাতে । আটকের পর সাজাপ্রাপ্ত হয়েছে প্রায় ২ শত জেলে।
সরেজমিন একাধিক সূত্রে জানা যায়, মা ইলিশ সংরক্ষনে গত ৯ অক্টোবর থেকে ৩০ অক্টোবর মোট ২২ দিন মা ইলিশ নিধনে সরকারের নিধেধাজ্ঞা দিয়েছে। নিষেধাজ্ঞার কয়েকদিন আগে থেকেই মাদারীপুরের শিবচরের পদ্মা পাড়ের বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের নিয়ে উপজেলা প্রশাসন ও মৎস বিভাগ জনসচেতনতামূলক সভা করেছে। বিতরন করা হয়েছে লিফলেট। পদ্মা নদী বেষ্ঠিত চরজানাজাত, কাঁঠালবাড়ি, বন্দরখোলা, মাদবরচর ও সন্নাসীরচর ইউনিয়নের ১ হাজার ৯০ জন জেলের প্রত্যোকে ২০ কেজী করে চাল অনুদান দেওয়া হয়েছে। তবুও এক শ্রেনীর অসাধু মৌসুমী জেলে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মা ইলিশ নিধনে মেতে উঠেছে। ইলিশ নিধনে সরকারের নিষেধজ্ঞা বাস্তবায়নে প্রথম দিন থেকেই গভীর রাতে পদ্মা পাড়ের শিবচরের কাঠালবাড়ি ঘাটে হাজির হন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল নোমান, জেলা মৎস কর্মকর্তা রিপন কান্তি ঘোষ, ওসি আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা মৎস কর্মকর্তা এটিএম শামসুজ্জামানসহ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব, পুলিশের সমন্বয়ে ভ্রাম্যমান আদালত । মধ্যরাতের নিরবতা ভেঙ্গে স্পীডবোট ও ট্রলারযোগে অভিযান পরিচালনাকারীরা হানা দিচ্ছেন পদ্মা নদীজুড়ে। ধরা পড়ছে মাছবোঝাই একের পর এক নৌকা। জেলেদের প্রতিটি জালেই দেখা যায় মা ও জাটকা ইলিশের প্রাধান্য। এসময় বেশকিছু নৌকা নদীতে জাল ফেলেই চরে পালিয়ে যায়। এ পর্যন্ত প্রায় ২ শত জেলেকে আটক করে দেয়া হয়েছে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা। আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা। জব্দ করে আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংশ করা হয়েছে প্রায় আড়াই লাখ মিটার জাল । জব্দকৃত বিপুল পরিমান ইলিশ মাছ বিতরন করা হয় উপজেলার বিভিন্ন এতিমখানায়। প্রতি রাতেই প্রশাসন পদ্মায় অভিযান অব্যাহত রেখেছেন । তবু থামছেনা ইলিশ শিকার । সাজাপ্রাপ্তদের জিজ্ঞাসাবাদে বের হয়ে আসে নিষেধাজ্ঞার এই সময়ে দিনের বেলা কড়াকড়ি থাকায় সন্ধ্যার পর থেকে ভোর রাত পর্যন্ত ইলিশ ধরছে অনেক জেলে। আর তা বিক্রি হচ্ছে নদীর চরে কাশবনে রেখেই । মুঠোফোনের মাধ্যমে ক্রেতাকে ডেকে এনে বা নদী পাড়ের বাজারে । কাজীরসুরা নামের এক বাজারে প্রকাশ্যেই ইলিশ ধরার , বিক্রির ধুম ঠেকাতে গিয়ে হামলার শিকার হয়ে গুলি চালাতে বাধ্য হয় প্রশাসন। ভাটি অঞ্চলে কোস্টগার্ড,নেভি ও নৌ পুলিশ নদীতে সার্বক্ষনিক থাকায় উজানের এ অঞ্চলের নদীতে এখন ইলিশের ছড়াছড়ি হওয়ায় জেলেরা নিধন যজ্ঞে নেমেছে। ইলিশ ধরার এই কৌশল স্বীকার করেন অসাধু জেলেরা। ক্রেতাদের দাবী শক্তহাতে প্রতিরোধ করা হোক এই অসাধু জেলেদের। কারন তারা সারা বছর কমদামে ইলিশ খেতে চান।
সাজাপ্রাপ্ত জেলে জসিম বলেন, রাতের বেলা প্রশাসনের লোকজন কম থাকায় আমরা রাতে মাছ ধরি। পদ্মার চরে মাছ লুকিয়ে রেখে সকালে মোবাইলে খরিদ্দার ঠিক করে মাছ বিক্রি করি। আবার চরের আশপাশের বাজারেরও বিক্রি করি।
সাজাপ্রাপ্ত আরেক জেলে নয়ন বলেন, অনেক জেলে সরকারের সাহায্য পাইছে কিন্তু আমরা পাই নাই। আমরাতো প্রকৃত জেলে। তাই আমরা পেটের দায়ে বাধ্য হইয়া ইলিশ মাছ ধরি।
বন্দরখোলা এলাকার বাসিন্দা আলমগীর হোসেন বলেন, এই বাইশ দিন যদি ইলিশ মাছ না ধরা হয় তাহলে আমরা সারা বছরই অনেক কম দামে ইলিশ মাছ খেতে পারবো। তাই প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ আরো কঠোরভাবে যেন তারা অভিযান পরিচালনা করে। যাতে কোন জেলে পদ্মায় জাল ফেলতে না পারে।
শিবচর উপজেলা সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এটিএম শামসুজ্জামান বলেন, সরকারের এই নিষেধাজ্ঞার সময় জেলেরা নতুন কৌশলে গভীর রাতে ইলিশ মাছ নিধন করে চরে বসেই বিক্রি করছে। আমরা জেলেদের এই কৌশল বুঝতে পেরে গভীর রাতেই পদ্মায় অভিযান পরিচালনা করছি। মা ইলিশ রক্ষায় আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
শিবচর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল নোমান বলেন, আটককৃত জেলেদের সাথে কথা বলে জানা গেছে মা ইলিশ নিধনকারী বেশিরভাগ জেলেই অন্য পেশায় নিয়োজিত। শুধুমাত্র সরকারের নিষেধাজ্ঞার সময়ে এরা কয়েকজন মিলে দল গঠন করে মা ইলিশ নিধন করে মুঠোফোনের মাধ্যমে চরে বসে বা পদ্মার পাড়ের বিভিন্ন হাটে বিক্রি করে।
মাদারীপুর জেলা মৎস কর্মকর্তা রিপন কান্তি ঘোষ বলেন, এটা মূলত ইলিশের প্রজনন মৌসুম। এ সময়ে ইলিশ মাছ পদ্মাসহ বিভিন্ন নদীতে প্রবেশ করে। উজানের এ অঞ্চলে এখন ইলিশের ছড়াছড়ি। অসাধু জেলেরা ইলিশ নিধন যজ্ঞ চালাচ্ছে। আমরাও প্রতিনিয়ত অসাধু জেলেদের আটক করে জেল জরিমানা করছি।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত মধ্যরাতেই পদ্মা নদীর শিবচর অংশের ১২ কিলোমিটার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করছি। জেলেদের আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড প্রদান করা হচ্ছে। কয়েকদিন আগে বন্দরখোলা ইউনিয়নের কাজীর সূরা এলাকায় কিছু জেলে আমাদের কর্মকর্তাদের উপর হামলার চেষ্ঠা করেছিল। পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়লে ওরা পালিয়ে যায়। মা ইলিশ রক্ষায় আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

প্রতিনিয়ত প্রশাসন অভিযান চালিয়ে ইলিশ শিকারীদের জেল-জরিমানা করলেও থামেনি দৌরাত্ম ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates