ডেঙ্গু প্রতিরোধে শিবচর,মাদারীপুর জেলা উপজেলা হাসপাতালগুলোতে নেই উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা #এ পর্যন্ত ৮ জনের মৃত্যু ,আক্রান্ত ৫ শ

Madaripur Haspatal Dengu Condition-2

বিশেষ রিপোর্টঃ
ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত শিবচরের ৪জনসহ মাদারীপুর জেলার ৮ জন মারা গেছে। আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৫শ। আক্রান্তর মধ্যে এখনো অর্ধশতাধিক রুগী জেলার ৪টি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।   হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু সনাক্তকরন ছাড়া ব্লাড ব্যাংক , প্লাটিলেট ট্রান্সফারসহ  তেমন কোন উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা নেই। ডাক্তার, নার্সদের নিরলস চিকিৎসা সেবাই মূল হাতিয়ার।  ফলে সামান্য অবনতিতেই রুগী পাঠানো হচ্ছে ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে।
একাধিক সূত্রে জানা যায়, ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে গৃহবধু ৩ সন্তানের জননী সুমি আক্তার (৩০) গত ২০ আগষ্ট জেলার শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। তিনি হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। কিন্তু ২৪ আগষ্ট তার অবস্থার অবনতি ঘটলে রাতেই তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। পদ্মা পাড়ি দিয়ে ঢাকার পথেই তার মৃত্যু হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে এমনকি জেলা সদর হাসপাতালেও উন্নত চিকিৎসা প্লাটিলেট বিভক্তকরন করে রুগীকে দেয়াতো দূরে থাক ব্লাড ব্যাংকও না থাকায় কোন প্রকার চেষ্টাও করা যায়নি সুমিকে বাচানোর। ফলে সবচেয়ে ঝূকিপূর্ন অবস্থায় পাঠাতে হয় ঢাকা আর পথেই ঘটে মৃত্যু। এর আগে ঢাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে গিয়ে নিজেই ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা যান মাদারীপুর সদর উপজেলার স্বাস্থ্য সহকারী তপন মন্ডল (৩৫) ।  ১৩ আগষ্ট একই উপজেলার ঢাকা ফেরৎ হাজী আবদুল মজিদ (৭৫) মারা যান। ৪ আগষ্ট মারা যান ২ সন্তানের জনক গার্মেন্টস শ্রমিক রিপন হাওলাদার (৩২)।
২ আগষ্ট রাতে কালকিনির নাদিরা আক্তারের(৩৭) মৃত্যু হয়। এছাড়াও রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট এলাকার রুবেল হোসেনের মেয়ে শারমিন আক্তার (২২), শিবচরের সলুবেপারীরর কান্দি এলাকার বাবু খানের ছেলে ফারুক খান (২২) ও কালকিনি উপজেলার পৌরসভার ঠেঙ্গামারা গ্রামের বারেক বেপারীর ছেলে জুলহাস বেপারী (৪৫) ঢাকায় মারা গেছেন। এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মাদারীপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে প্রায় ৫শ রোগী চিকিৎসা নিয়েছে। বর্তমানে অর্ধশতাধিক রোগী জেলার ৪টি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। প্রথম দিক জেলা সদরে রুগীর ভিড় বাড়লেও দিনদিন উপজেলা হাসপাতালগুলোতে ভীড় বাড়ছে। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন আক্রান্ত ও মৃত্যুর স্বীকার মাদারীপুর থেকে যারা ঢাকা যায়নি দীর্ঘদিন। অনেকে ঢাকা থেকে আক্রান্ত হয়ে মাদারীপুরে এসেছে। ডাক্তার, নার্স ও প্যাথলজিস্টরা নিরলস পরিশ্রম করলেও পর্যাপ্ত মেশিনারিজ ও সুযোগ সুবিধা না থাকায় উন্নত চিকিৎসা বঞ্চিত থাকছেন ডেঙ্গু আক্রান্তরা। ফলে সামান্যতেই স্থানান্তর করা হচ্ছে রুগীদের।
শিবচর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু রোগী আকবর বলেন, কয়েকদিন ধরে আমার জ¦ও আর মাথা ব্যাথা থাকায় হাসপাতালে এসে রক্ত পরীক্ষা করলে ডাক্তার বলে ডেঙ্গু হয়েছে। তাই এখানে ভর্তি আছি। এখানে আমাকে স্যালাইন দিয়েছে আর শুধুমাত্র প্যারাসিটামল ট্যাবলেট খাওয়ায়।
ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ওমর ফারুকের বাবা বলেন, আমার ছেলে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিল। অবস্থা খারাপ হলে এখানকার ডাক্তাররা তাকে বরিশাল পাঠালে সেখানে তার মৃত্যু হয়। কর্মক্ষম ছেলে হারিয়ে আমার পরিবার খুব সমস্যায় আছে। সরকারের কাছে আমরা সহযোগীতা কামনা করি।
মাদারীপুর সদর হাসপাতালের এক নার্স বলেন, একজন রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন হয়ে রক্ত প্রয়োজন হলে রক্ত দেওয়ার মত ব্লাড ব্যাংক আমাদের এখানে নেই। রোগীর অবস্থা বেশি খারাপ হলে আইসিউতে রাখার সুযোগ সুবিধাও আমাদের হাসপাতালে নেই তাই আমরা রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র পাঠাই।
শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স টেকনোলজিস্ট গোলাম রেজাউল নবী বলেন, এখানে বর্তমানে ডেঙ্গু রোগীদের অনেক চাপ বেড়েছে। ডেঙ্গু রোগীদের রক্তে প্লাটিলেট কমে গেলে বৃদ্ধির চিকিৎসা সুবিধা উপজেলা পর্যায়ের কোন হাসপাতালেই নেই। আমারা সাধারনভাবে রক্ত দিতে পারি । কিন্তু প্লাটিলেট সেপারেশন করে দেওয়ার ব্যবস্থা আমাদের নেই।
শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোকাদ্দেস আলী বলেন, আমাদের প্যাথলজিতে ব্লাড সিবিসি, প্লাটিলেট কাউন্ট, এনএস ওয়ান ও ডেঙ্গু আইজিজি এবং আইজএম এই সকল পরীক্ষা করা হয়। রোগীর শরীরে প্লাটিলেট দেওয়ার মত ব্যবস্থা আমাদের এখানে নেই। আমাদের মেডিসিন কনসালটেন্ট আছে তার আন্ডারেই রোগেীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। একজন রোগী যখন রেশলেস হয়ে যায় আমরা সাধারনত তখনই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করি। আমাদের উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালে যতটুকু সুবিধা আছে আমরা তার সবটুকু সুবিধা একজন রোগীকে দিয়ে থাকি।
মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. এসএম খলিলুজ্জামান, ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের আমরা গুরুত্ব সহকারে সেবা দিয়ে থাকি। অনেকেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। অবস্থা সংকটাপন্ন হলে কোন কোন রোগীকে আমরা অন্যত্র পাঠিয়ে দেই। আমরা ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতা বাড়াতে লিফলেট বিতরন, সভা সেমিনারসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেছি। রোগীদের রক্তে পাøটিলেট দেওয়াসহ উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা আমাদের জেলা উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে নেই। তাই উন্নত চিকিৎসার স্বার্থেই আমরা রোগীদের ঢাকা বা ফরিদপুর পাঠাই।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত শিবচরের ৪জনসহ মাদারীপুর জেলার ৮ জন মারা গেছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates