কাঁঠালবাড়ী ঘাটে বেদে শিশুদের বিড়ম্বনার শিকার ঘরমুখো যাত্রীরা

Shibchar Kathalbari Ghat Beday-10.8.19

ইমতিয়াজ আহমেদ ঃ

দেশের ব্যস্ততম নৌরুট কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া। ব্যস্ততম এ নৌরুটে ঈদের সময় ব্যস্ততা বেড়ে যায় কয়েকগুন। হাজার হাজার মানুষের ঘরে ফেরার মিছিল থাকে বছরের দুই ঈদ মৌসুমে। সম্প্রতি এই ব্যস্ততম সময়ে ঘাটজুড়ে বিচরণ করতে দেখা যায় এক ঝাঁক বেদে শিশুদের। প্রশিক্ষিত এ বেদে শিশুদের দল লঞ্চ, স্পিডবোট ও ফেরি ঘাটে বিচরন করে ঘরমুখো মানুষের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের উদ্দেশ্যে!
যাত্রীদের পথ আগলে দাঁড়িয়ে থেকে টাকা চায় এরা। না দেয়া পর্যন্ত পিছু ছাড়ে না। শার্ট বা ব্যাগ টেনে ধরে রাখতে চেষ্টা করে। বেদে শিশুদের এ ধরনের আচরনে বিব্রত হয়ে পরে যাত্রীরা।
শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ঘাট ঘুরে দেখা গেছে এই চিত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রোজার ঈদের সময় কাঁঠালবাড়ী ঘাটের পাশের খোলা জায়গায় নদীর পাড়ে এসে অস্থায়ী বসতি গড়ে বেদে সম্প্রদায়ের পরিবারগুলো। কোরবানির ঈদ শেষে আবার অন্য কোথাও চলে যায়। মূলত ঈদ মৌসুমে ঘাট এলাকায় যাত্রীদের ভীড়কে কাজে লাগায় তারা। যাত্রীদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করে। ঘরমুখো মানুষের ঘরে ফেরার তাড়ায় বেদেশিশুরা পথ আগলে দাঁড়ালে দ্রুত ১০/২০ টাকা দিয়ে মুক্ত হয় যাত্রীরা!

শনিবার শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ঘাট ঘুরে দেখা গেছে, লঞ্চ বা ফেরি থেকে যাত্রীদের নামার অপেক্ষায় লঞ্চঘাটের টার্মিনালে এবং ফেরি ঘাটের পল্টুনে দাঁড়িয়ে আছে বেদে শিশুরা। যাত্রীরা নেমে আসলেই দ্রুত ছুটে যাচ্ছে তাদের কাছে। কয়েকদলে ভাগ হয়ে যাত্রীদের পথ আটকে দাঁড়াচ্ছে ওরা। টাকা না দেয়া পর্যন্ত ছাড়ছে না কোনমতেই। যাত্রীরা এগিয়ে যেতে চাইলে পেছন থেকে শার্ট বা ব্যাগ টেনে ধরছে। নৌযান থেকে নেমে পরিবহনে উঠা পর্যন্ত কয়েক দফায় বেদে শিশুদের বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা।

গোপালগঞ্জগামী একটি পরিবারের সাথে কথা বললে তারা জানান, ফেরি থেকে নামতেই এ শিশুদের দল ঘিরে ধরে। আমাদের ছোট বাচ্চারা ভয়ে চিৎকার দিয়ে উঠে। দশ টাকা দেয়ার পরও দাঁড়িয়ে থাকে। আরো টাকা চায়। রীতিমত অসহ্য ব্যাপার।’

মাসুম নামের এক যাত্রী বলেন,’ আমি লঞ্চ থেকে নেমে টার্মিনালে যেতেই চার/পাঁচ জনের শিশুদের দল আমাকে ঘিরে ধরে। হাত পেতে টাকা চায়। আমিও টাকা দিতে পকেটে হাত দেই। ভাঙতি টাকা ছিল না। পঞ্চাশ টাকার নোট। বেদে শিশুদের হাতের মুঠোতে দশ টাকার নোট ছিল। আমি পঞ্চাশ টাকা হাতে ধরে চল্লিশ টাকা দিতে বলি। আমার হাত থেকে টাকা নিয়ে দৌড়ে ভিড়ের মধ্যে চলে যায়!’

ঘাটের বিভিন্ন মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ঘাট এলাকায় বেদেনীদের দলও রয়েছে। তবে বড়দের যাত্রীরা উপেক্ষা করে বেশি। এ জন্যই গত কয়েকদিন ধরে বাচ্চাদের ঘাটে দেখা যাচ্ছে। বড়দের চেয়ে বাচ্চাদের উপার্জন বেশি দেখে ওদের কাজে লাগাচ্ছে বেদেনীরা।

এ বিষয়ে কয়েকজন বেদেনীদের সাথে কথা বললে তারা জানান, বাড়তি আয়ের জন্যই বাচ্চাদের ঘাটে নামানো হয়েছে। সারাদিন খেলাধুলা করে সময় কাটানোর চেয়ে ঘাটে ঘুরে ঘুরে যদি কিছু পায় ক্ষতি কি?’

ভাসমান জীবন বেদে সম্প্রদায়ের। তবে প্রাচীন এ জীবনধারা থেকে বের হয়ে আসছে অনেকেই। শিবচরের বিভিন্ন স্থানে অনেক বেদে পরিবার স্থায়ী বসত শুরু করেছে অনেক আগে থেকেই। তাদের শিশুরাও স্কুলে যাচ্ছে কেউ কেউ। তবে ভাসমান জীবন যাদের, তাদের জীবনে আসেনি পরিবর্তন। পৈত্রিক পেশায় আয়-রোজগার কমে গেছে। বাধ্য হয়ে ঘাট এলাকার পথচারীদের পথ আগলে চেয়ে-চিন্তে নিচ্ছে দশ টাকা/পাঁচ টাকা।

ঈদ মৌসুমে বাড়তি উপার্জনের জন্য বয়স্কদের পাশাপাশি আয়-রোজগারে নামানো হয়েছে বেদে শিশুদেরও। যারা নাছোরবান্দা হয়ে পথচারীর কাছ থেকে টাকা-পয়সা আদায় করে। যার ফলে বিড়ম্বনার শিকার হন যাত্রীরা। প্রকাশ করেন বিরক্তি, ক্ষোভও।

আর যাত্রীদের বিরক্তি বা ক্ষোভ বা ধমক কিছুই ছুঁয়ে যায় না বেদে শিশুদের। একজনকে ছেড়ে আরেকজনকে ধরে। যাত্রীদের কাছ থেকে টাকা নিতে হবে; এজন্য লঞ্চ-ফেরি ঘাটে নোঙ্গও করার অপেক্ষায় বসে থাকে এ শিশুদের দল! যেন শিকারের অপেক্ষায় বসে থাকা তাদের!

দেশের ব্যস্ততম নৌরুট কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া। ব্যস্ততম এ নৌরুটে ঈদের সময় ব্যস্ততা বেড়ে যায় কয়েকগুন। হাজার হাজার মানুষের ঘরে ফেরার মিছিল থাকে বছরের দুই ঈদ মৌসুমে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates