চাপ সামাল দিতে কাঠালবাড়ি থেকে শিমুলিয়া ঘাটে খালি ফেরি, লঞ্চ, স্পীডবোট পাঠানো হচ্ছে#ঢাকা থেকে দক্ষিনাঞ্চলে পৌছতে বাড়তি ভাড়ার দৌরাত্ম

Shibchar Simuliya-Kathalbari root Eid Vir-10.8

শিব শংকর রবিদাস ও কমল রায় ঃ
শনিবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুট হয়ে যাত্রীদের যেন ঢল নামে। পরিস্থিতি সামাল দিতে কাঠালবাড়ি ঘাট থেকে ফেরি, লঞ্চ ও স্পীডবোট খালি অবস্থায় শিমুলিয়ায় পাঠানো হয়। ফেরি, লঞ্চ, স্পীডবোট সর্বত্রই যাত্রী আর যাত্রী। সুযোগ বুঝে ভাড়া বাড়ানো হয়েছে নৌযানগুলোতে। ঢাকাসহ বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কয়েকগুন ভাড়াগুনে এসে নৌযানে বাড়তি ভাড়া গুনে কাঠালবাড়ি থেকেও বাড়তি ভাড়া গুনে গন্তব্যে পৌছান যাত্রীরা। এদিনও কাঠালবাড়ি ঘাট থেকে গরু বোঝাই ট্রাক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করছে ফেরি কর্তৃপক্ষ। ঘাট এলাকায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল নোমান, সহকারী পুলিশ সুপার আবির হোসেন, ওসি আবুল কালাম আজাদসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করছেন। ঘাটে পুলিশ, র‌্যাব, ভ্রাম্যমান আদালতসহ বিপুল সংখ্যক আইন শৃংখলা বাহিনী নিয়োজিত রয়েছে।
জানা যায়, শনিবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুট হয়ে দক্ষিনাঞ্চলের ঘরমুখো যাত্রীদের ঢল নেমেছে। শিমুলীয়া থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চ, ফেরি, স্পীডবোট ছিল যাত্রীতে কানায় কানায় পূর্ন। ঢাকা থেকে প্রতিটি যানবাহনে দ্বিগুন থেকে তিন গুন ভাড়া আদায় করছে। এদিন লঞ্চ ও স্পীডবোটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেন যাত্রীরা। শিমুলীয়া থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চগুলোতে ৩৫ টাকা ভাড়ার টিকেট দিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে ৪০ টাকা ও স্পীডবোটে ১শ ৩০ টাকার ভাড়া ২শ টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন। পদ্মা পাড়ি দিয়ে কাঁঠালবাড়ি ঘাটে এসেও যাত্রীরা আবারো পড়ছেন বাড়তি ভাড়ার দৌরাত্বে। কাঁঠালবাড়ি থেকে দক্ষিনাঞ্চলগামী প্রতিটি যানবাহনে দ্বিগুনেরও বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন। সকাল থেকেই কাঁঠালবাড়ি ঘাটে ঢাকাগামী কোরবানির গরু বোঝাই ট্রাকের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে । ঘাট এলাকায় পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন শৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিত থেকে পরিস্থিতি সামাল দিচ্ছেন।
স্পীডবোট যাত্রী মাহফুজা আক্তার বলেন, বাসে গুলিস্থান থেকে শিমুলীয়া পৌছতে ৭০ টাকার ভাড়া নিয়েছে ২ শ টাকা, এখন পদ্মা পার হতে স্পীডবোটেও ১ শ ৩০ টাকার ভাড়া নিলো ২ শ টাকা।
লঞ্চযাত্রী আজিজুল হক বলেন, ঢাকা থেকে সারা পথই অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে শিমুলীয়া এসেছি। লঞ্চে উঠে নদী পার হলাম। লঞ্চের টিকেটে লেখা ৩৫ টাকা আর আমাদের কাছ থেকে তারা ভাড়া নিলো ৪০ টাকা। এটা কেউ দেখছে না।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, ঈদে ঘরমুখো দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রীদের শান্তিপূর্নভাবে ঘরে ফেরা নিশ্চিত করতে ঘাট এলাকায় পর্যাপ্ত আইন শৃংখলা বাহিনী রয়েছে। কোথাও ভাড়া বেশি বা অন্য কোন ভাবে যাত্রী হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

শনিবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুট হয়ে যাত্রীদের যেন ঢল নামে। পরিস্থিতি সামাল দিতে কাঠালবাড়ি ঘাট থেকে ফেরি, লঞ্চ ও স্পীডবোট খালি অবস্থায় শিমুলিয়ায় পাঠানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates