শিবচরে প্রেম করে বিয়ে করার শেষ পরিনিতি মৃত্যুই হলো গৃহবধূ শাহিদার ঃ ঘরের মেঝোতে স্ত্রীর লাশের পাশেই বসে ছিল স্বামী রেজাউল

Shibchar SahidaShibchar Member Rezaul

মোহাম্মদ আলী মৃধা ঃ
হত দরিদ্র ফুটফুটে শাহিদা বয়স মাত্র ২২ বছর। শিবচর উপজেলার বন্দরখোলা ইউনিয়নের পদ্মা বেষ্টিত প্রত্যন্ত চরাঞ্চল তাহের শিকদারের কান্দি গ্রামের মরহুম কাজের মোল্লার ছোট মেয়ে। গত এক বছর আগে হত দরিদ্র পিতার মৃত্যু হয়। অভাবি সংসারে রেখে দুই ছেলে ছয় মেয়ের মধ্যে সবার ছোট শাহিদা। পরিবারের সবার ছোট হওয়ায় আদরটাও ছিল তার অনেক বেশি। তবে শাহিদাও আবেগের বসে নিজের অজান্তেই করে ফেলে ভুল। বন্দরখোলা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড সদস্য বিবাহিত রেজাউলের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। পরিবারের সম্মতি ছাড়াই প্রায় তিন বছর আগে রেজাউলের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় শাহিদা। এই বিয়ের পর ভাইবোন ও বৃদ্ধামা রুপবানু শাহিদার সাথে সম্পুর্ন যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। রেজাউলের সাথেও ওই পরিবারের সম্পর্ক ভাল ছিল না। তাই রেজাউলও মাঝে মধ্যে খারাপ আচরন করতে থাকে ঐ পরিবারটির সাথে। এদিকে বাড়িতে রেজাউলের প্রথম স্ত্রী ও সন্তান থাকায় তাদের সাথে শাহিদার সম্পর্ক ভাল যাচ্ছিল না। এতে প্রায় দেড় বছর ধরে তারা দুজন ঐ এলাকা থেকে মাদবর চর ইউনিয়নের ডাইয়ার চর গ্রামে শাহআলম শেখের বাড়িতে একটি ঘর ভাড়া নেয়। তবে দিন দিন শাহিদার প্রতি আকর্ষন কমতে থাকে শাহিদার। ভাড়া বাড়িতে থাকার পর থেকে প্রায়ই রেজাউল শাহিদার উপর নির্যাতন চালাত। স্বামীর নির্যাতনকে মেনে নিয়ে দিনের পর দিন কাটতে থাকে হতদরিদ্র মেয়েটির। এর কারন হলো মা ও ভাইবোনকে ফেলে রেখে নিজের সম্মতিতে মেম্বর রেজাউলকে বিয়ে করেছে শাহিদা। স্বামীকে ছেড়ে গেলে বাবার সংসারে উঠার মত আর ঠাই নাই। গত বুধবার রাতেও শাহিদার সাথে রেজাউলের ঝগড়া হয়। রাত আনুমানিক ১.৩০ টার সময় বাসায় ঘরের মেঝোতে গলায় শাড়ির পাইর পেচানো অবস্থায় ফেলে রাখা ছিল শাহিদার মৃত্যু দেহ। এর পাশে বসে কাদছিল মেম্বর রেজাউল। আশে পাশের ভাড়াটিয়ারা রেজাউলের কান্নার শব্দ পেয়ে রুমের কাছে এগিয়ে যায়। পরে রেজাউল ঘরের দরজা খুলে দিলে স্থানীয়রা শাহিদাকে ঘরের মেঝোতে পরে থাকতে দেখে। স্থানীয়দের ব্যাপারটি সন্দেহ হলে তাৎক্ষনিক শিবচর থানার পুলিশকে সংবাদ দেয়। সংবাদ পেয়ে এস আই সুমন আইচের নেতৃত্বে একদল পুলিশ শাহআলমের বাসার মেঝো থেকে শাহিদার লাশ উদ্ধার করে। এসময় পুলিশ স্বামী রেজাউলকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার ভোরে শাহিদার লাশটি মাদারীপুর মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এব্যপারে শাহিদার বড় ভাই আবুল হাসান বাদী হয়ে শিবচর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।

শাহিদার বড় বোন মাজেদা জানান, রেজাউল অনেকটাই হিং¯্র। আমাদের পরিবারের কেউ ওকে পছন্দ করতাম না। মাঝে মধ্যে শাহিদাকে অমানুষিক নির্যাতন চালাত। ওরা প্রেম করে বিয়ে করেছে এই জন্য আমরা কেউ এর প্রতিবাদ করতাম না। শাহিদার গলায় শাড়ির চিকন পাইর পেচানো ছিল। এবং তাকে ঘরের মেঝোতে ফেলে রাখা ছিল। এটা সম্পুর্ন পরিকল্পিত হত্যা। আমার বোনকে রেজাউল হত্যা করেছে। আমরা এর বিচার চাই। একটা মানুষ কিভাবে শাড়ির চিকন পাইর দিয়ে আতœ হত্যা করবে? এই ঘটনাটি আতœ হত্যা ছোট একটা শিশুও বিশ্বাস করবে না।
শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, সংবাদ পেয়ে আমরা লাশটি উদ্ধার করে মাদারীপুর মর্গে প্রেরণ করেছি। এবং স্বামীকে আটক করেছি। ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর ধরন বলা যাবে না।

হত দরিদ্র ফুটফুটে শাহিদা বয়স মাত্র ২২ বছর। শিবচর উপজেলার বন্দরখোলা ইউনিয়নের পদ্মা বেষ্টিত প্রত্যন্ত চরাঞ্চল তাহের শিকদারের কান্দি গ্রামের মরহুম কাজের মোল্লার ছোট মেয়ে। গত এক বছর আগে হত দরিদ্র পিতার মৃত্যু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates