নৌরুটে ঈদে লাখো দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রীর ভিন্নমাত্রার উৎসবযাত্রা, প্রশ্ন” আগামী রোজার ঈদে কি পদ্মা সেতু দিয়ে পার হবো? ”

Shibchar Padma Bridje Lac Eyes Shibchar Padma Bridje Lac Eyes-2

সরেজমিন বিশেষ রিপোর্টঃ
মেহেদী হাসান। পেশায় বেসরকারি চাকুরীজীবি । গাজীপুরের ট্রেক্সটাইল মিলে চাকুরী করেন। স্ত্রী সন্তান ভাইদের নিয়ে যাচ্ছেন। পদ্মা নদীর উত্তালতার মাঝেই কালকিনির পরিবারটির নজর স্বপ্নের পদ্মা সেতুর দিকে । তার সন্তানসহ পরিবারের সদস্যদের দেখাচ্ছেন গড়ে উঠা পদ্মা সেতুটিকে। তার মতোই লঞ্চটির সবার নজরই পদ্মা সেতুর দিকে। এবারের ঈদে লাখ লাখ দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রীর আসা যাওয়ার পথে ঈদ আনন্দে নতুন মাত্রা যোগ করে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। আসা যাওয়ার পথে একে অপরের কাছে নৌযান সম্পৃক্তদের কাছে প্রশ্ন ছুড়ছেন আগামী ঈদে কি পদ্মা সেতু দিয়ে পার হতে পারবো না নৌ যানে। কবে পার হবো সেতু দিয়ে। যেন আর তর সইছে না যাত্রীদের। এমনই এক মধুময় পরিবেশের মধ্য দিয়ে এবারের ঈদ যাত্রা করছেন শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুট হয়ে দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রীরা।

সরেজমিনে লঞ্চ ও ফেরিতে চড়ে নৌপথ পারাপারের সময় যাত্রীদের সাথে আলাপ করে পদ্মা সেতু নিয়ে তাদের স্বপ্নের কথা জানা যায়, ফেরি যাত্রী মাসুম আবদুল্লাহতো প্রাইভেটকারে ভাই ভাবী ২ ভাতিজাকে নিয়ে গল্প করতে করতে জাজিরায় টোল প্লাজাই ঘুরে এসেছেন আগাম স্বপ্ন পূরনে। বায়িং ব্যবসায়ী মাসুম স্বপ্ন দেখেন একদিন বাড়ি গোপালগঞ্জে বসেই ব্যবসা করবেন। তার মতো এক এক যাত্রীর এক এক গল্প । পটুয়াখালীর এক যাত্রী স্বপ্ন দেখেন পদ্মা সেতুর সাথে রেললাইন বাস্তবায়ন হলে মাত্র ৩ থেকে সাড়ে ৩ ঘন্টায় বাড়ি থেকে ঢাকায় গিয়ে অফিস করবেন। এমনই হাজারো স্বপ্ন ঢানা মিলছে পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের সাথে সাথে। ঈদে আসা যাওয়ার পথে লাখো যাত্রীর স্বপ্ন ও আলোচনার স্বাক্ষী এখন পদ্মা নদী ও এরুটের নৌযানগুলো। মাথা উঠিয়ে দাড়ানো ১৩টি স্প্যান, জেগে উঠা প্রায় সব কটি পিলার যেন কথা বলে যাত্রীদের সাথে। তারা পদ্মা পাড়ি দেয়ার সময় হাজারো ভোগান্তি ভুলে দেখে নিচ্ছেন গড়ে উঠা পিলার, স্প্যানসহ পদ্মা সেতুর বিশাল কর্মযজ্ঞ। কেউবা তুলছেন সেলফি। সবার মুখে মুখেই পদ্মা সেতু কেন্দ্রিক গল্প। সবমিলিয়ে এ এক ভিন্নমাত্রার ঈদ যাত্রা পদ্মা নদী ও প্রিয় সেতুটিকে ঘিরে। ১৮ টি ফেরি, ৮৭ টি লঞ্চ ও ২ শতাধিক স্পীডবোটের চালকদের কাছে কতই না প্রশ্ন এসকল যাত্রীদের। কবে হবে পদ্মা সেতু ? আগামী বছর কি সেতু দিয়ে পার হতে পারবো সহ কতই না কৌতহলী প্রশ্ন। শিশু কিশোররাও উদ্বেলিত। পদ্মা নদীতে আসার আগে ঢাকা থেকে শিমুলিয়া পর্যন্ত নির্মানাধীন ৬ লেন এক্সপ্রেস হাইওয়ে ও নদী পার হয়ে চালু হওয়া অপরুপ এক্সপ্রেস হাইওয়ে ঘরমুখো এ যাত্রায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে।
লঞ্চ যাত্রী প্রবাসী লিয়াকত হোসেন বলেন, আমার বাড়ি মাওয়া ঘাটের কাছে। আমরা এখন স্বপ্ন দেখি পদ্মা সেতু হলে আমাদের এলাকায় এক আমূল পরিবর্তনের। আমরা আশা করেছিলাম আরো আগেই সেতু নির্মান শেষ হয়ে যাবে। তবে বর্তমানে সেতুর কাজ দ্রুত চলছে। আমরা চাই দ্রুত গতিতে কাজ শেষ করে আমাদের স্বপ্নের পদ্মা সেতু যেন সম্পন্ন করা হয়।
ফেরি যাত্রী ব্যবসায়ী মাসুম আব্দুল্লাহ বলেন, আমরা দক্ষিনাঞ্চলের যারা কর্মসংস্থানের জন্য ঢাকা থাকি ঈদসহ বিভিন্ন উৎসবে বাড়ি ফিরতে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। পদ্মার পাড়ে আসলেই ফেরি, লঞ্চ বা অন্য নৌযানের জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। স্বপ্নের এই পদ্মা সেতুই আমাদের দক্ষিনবঙ্গের মানুষের ভোগান্তি লাঘবের একমাত্র উপায়। এই পদ্মা সেতু নির্মান শেষ হলে মানুষের শুধু দূর্ভোগই শেষ হবে না, মানুষের অর্থনৈতিক, সামাজিক, যোগাযোগসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন হবে। রাজধানী ঢাকার উপর মানুষের চাপ কমবে। আমার বাড়ি গোপালগঞ্জ। কর্মসংস্থানের জন্য পরিবার পরিজন নিয়ে ঢাকা থাকি। বিভিন্ন উৎসবে বাড়ি যাই। পদ্মা সেতু হলে আমরা কিন্তু আর ঢাকা থাকবো না। বাড়ি থেকে ঢাকা এসে ব্যবসা বা চাকরি করবো। একটা কথা আছে না, স্বপ্ন যাবে বাড়ি আমার, স্বপ্ন কিন্তু আর বাড়ি যাবে না। আমরা বাড়িতে বসেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবো। আগে আমরা ভাবতাম পদ্মা সেতু কবে হবে। আর বর্তমানে দেখছি পদ্মা সেতুর সকল পিলার উঠে গেছে। স্প্যানও বসানো হচ্ছে। এখন আমরা ভাবি কবে পদ্মা সেতুতে গাড়ি নিয়ে উঠবো। আজইতো আমরা যখন ঢাকা থেকে গাড়ি নিয়ে আসছি তখন পদ্মা সেতুর টোলপ্লাজা দেখে আমরা পরিবারের সকলে আলোচনা করেছি আর কিছুদিন পরে আমরাও পদ্মা সেতুর টোল দিয়ে সেতুর উপর দিয়ে গাড়ি নিয়ে বাড়ি যাবো। তাই কবে পদ্মা সেতু হবে এই স্বপ্ন আর দেখিনা, এখন স্বপ্ন দেখি কবে পদ্মা সেতুর উপরে উঠবো।
লঞ্চযাত্রী চাকুরীজীবী মেহেদী হাসান বলেন, পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঈদ উপলক্ষে গ্রামের বাড়ি কালকিনি যাচ্ছি। লঞ্চে দাড়িয়ে দৃশ্যমান পদ্মা সেতু দেখছি আর অবাক হচ্ছি। আর কিছুদিন পরেই আমাদের দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন পূরন হবে। ঘাটে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করাসহ যে ভোগান্তি তার হাত থেকে নিস্তার পাবো। পদ্মা সেতু হলে দক্ষিনাঞ্চলে শিল্পায়ন হবে, স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নের আরেক ধাপ এগিয়ে যাবে। সেতুর নির্মান কাজ দেখে মনে হচ্ছে আগামী বছর ঈদেই হয়তো এই সেতু দিয়েই আমরা বাড়ি ফিরতে পারবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এটাই আমরা আশা করছি।
কেটাইপ ফেরি কর্নফুলীর মাস্টার ইনচার্জ শাহীন আলম বলেন, দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের জন্য পদ্মা সেতু এখন প্রানের চেয়েও প্রিয় হয়ে গেছে। ঈদসহ বিভিন্ন উৎসবে যাত্রী ও যানবাহনের অনেক অনেক চাপ থাকে এই নৌরুটে। আবহাওয়া দূর্যোগপূর্ন হলে যাত্রীদের অনেক বেশি ভোগান্তি পোহাতে হয়। আর তখন ফেরি উপর চাপও অনেক বেশি পড়ে। আমরা কখনো কখনো যানবাহন রেখে শুধুমাত্র যাত্রী পারাপার করি। পদ্মা সেতু এখন সকলের প্রানের দাবী। ফেরিতে পারাপারের সময় দেখি যাত্রীদের নজর শুধুমাত্র নির্মানাধীন পদ্মা সেতুর দিকেই। নদী পারাপারের পুরো সময়টা পদ্মা সেতু নিয়েই চলে তাদের আলোচনা। যাত্রীরা আমাদের প্রশ্ন করে আপনারাতো নদীতে সবসময় থাকেন ভাই আর কতদিন লাগবে পদ্মা সেতু শেষ হতে।
ঈদের সময় ঘাটে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শিবচর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল নোমান বলেন, পদ্মা সেতুকে ঘিরে মানুষের যে স্বপ্ন আসলে এর পরিধি ব্যাপক। তাদের এই স্বপ্ন অনেক আগের। এক সময় মানুষ হয়তো ভাবতো এই প্রমত্তা পদ্মা নদীর উপর দিয়ে একদিন হয়তো সেতু হবে। মানুষ এখন এই পদ্মা পাড়ি দেওয়ার সময় পদ্মা সেতুর কর্মযজ্ঞ দেখে ভাবে তাদের স্বপ্নের সফল পরিসমাপ্তি বা বাস্তবায়ন দ্রুততার সাথে হচ্ছে। মানুষ পদ্মা সেতুকে নিয়ে স্বপ্ন দেখে নিজেদের জীবন-জীবিকার পরিবর্তনের। মানুষ পদ্মা পাড়ি দেওয়ার সময় ভাবে তাদের দীর্ঘ দিনের দূর্ভোগের লাঘব একমাত্র পদ্মা সেতুর মাধ্যমেই হবে।

এক মধুময় পরিবেশের মধ্য দিয়ে এবারের ঈদ যাত্রা করছেন শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুট হয়ে দক্ষিনাঞ্চলের যাত্রীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates