পদ্মা সেতু রেললাইন প্রকল্প সম্প্রসারনের খবর ঃ শত শত অবৈধ ঘর বাড়ি দোকানপাট বসিয়ে কোটি কোটি টাকা লোপাটে সক্রীয় অসাধু চক্র

Madaripur Padma bridje railway Extension Elegal house-1

সরেজমিন বিশেষ রিপোর্ট ঃ
পদ্মা সেতুর সাথেই দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের বহুল প্রত্যাশিত রেললাইন নির্মানের লক্ষ্য নিয়ে বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে ঢাকা-ভাঙ্গা-যশোর রেল সংযোগ নির্মানের তোড়জোড় শুরু হয়েছে। দেশী বিদেশীদের কর্মতৎপরতায় মুখর কর্মযজ্ঞ। এরইমাঝে সরকারের আগাম তথ্য ফাস হয়ে যাওয়ায় রেললাইন সম্প্রসারনের খবরে অধিগ্রহনের সম্ভাবনায় প্রকল্পের মাদারীপুরের শিবচর অংশসহ অধিকাংশ অংশেই সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে গড়ে তোলা হচ্ছে অবৈধ ঘরবাড়ি দোকানপাট গড়ে উঠেছে। একটি অসাধু চক্র জড়িত এই অপতৎপরতায়।
সরেজমিন একাধিক সূত্রে জানা যায়, পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা- মুন্সীগঞ্জ-শরীয়তপুরের জাজিরা-মাদারীপুরের শিবচর-ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত রেল লাইন নির্মানের জন্য সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শেষে ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে অধিগ্রহন প্রক্রীয়া শুরু হয়ে প্রায় শেষ পর্যায়ে। প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে রেললাইন হবে সিঙ্গেল লাইন। কেরানীগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর রেলস্টেশন, শিবচরে ২ টি স্টেশন, যশোর ও ভাঙ্গায় একটি করে জংশন নির্মান করা হবে। এছাড়াও ৩৪ টি সেতু, ৯৬ টি বক্স কালভার্ট এবং আন্ডারপাস থাকবে এ প্রকল্পে। বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ^রী নদীতে নির্মিত হবে ২১.৮৪ কিমি. উড়াল সংযোগ সেতু। প্রথম পর্যায়ে ভাঙ্গা পর্যন্ত ৮২ কিলোমিটার প্রথম ফেসে অধিগ্রহন শেষে চলছে ক্ষতিপূরন বিতরনও শেষ পর্যায়ে । মোট ৩৫৮.৪১ হেক্টর জমি অধিগ্রহন করা হয়। রেললাইন নির্মানে উচু জমিতে ১শ ২০ ফুট ও নীচু জমিতে ১শ ৫০ ফুট প্রশস্থতায় জমি অধিগ্রহন করা হয়। প্রথমে ধীরগতি থাকলেও গত ১ বছরে বেড়েছে কাজের গতি। এরইমাঝে গত ২ মাস আগে রেললাইন সম্প্রসারনের লক্ষ্যে প্রকল্প এলাকায় মার্কিং করা হয়। এরপরই শুরু হয়েছে শিবচর অংশসহ প্রকল্পর বর্ধিত অংশজুড়ে সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে সংলগ্ন এলাকায় গড়ে উঠছে শত শত অবৈধ ঘর বাড়ি দোকানপাট। তবে এখন পর্যন্ত কতটুকু জায়গা সম্প্রসারন হবে তা নিশ্চিত নয় প্রশাসন। শিবচরের মাদবরচর মোল্লাকান্দি, পোদ্দারচর, কাঠালবাড়ি, জাজিরার বিভিন্ন গ্রামসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ফসজি জমির মাঠে গড়ে উঠছে ঘর বসতি, লাগানো হয়েছে গাছ। অধিকাংশ ঘর শুন্য। কেউ থাকে না তাতে। সরকারের আগাম তথ্য ফাসের কারনেই এ অপতৎপরতা শুরু হয়েছে। স্থানীয়রা সবাই জানে এই দুর্নিতীর কথা। তাদের অভিযোগ সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের যোগ সাজশেই আগাম তথ্য ফাসের কারনে চলছে এসব। অনেক নদী ভাঙ্গন কবলিতদের আনা হয়েছে এ ঘরগুলোতে।
স্থানীয় আবু কালাম বলেন, পদ্মা সেতুর রেললাইন বড় করতে নাকি আরো জমি নিবো। এই কথা শোনার পর আমাগো এলাকায় ফসলি জমিতে ঘরবাড়ি তোলার হিড়িক পড়ে গেছে। বেশির ভাগ ঘরে কোন লোকজন থাকে না। কিছু ঘরে নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ লোকজনকে এনে থাকতে দেয়া হয়েছে।
আরেক স্থানীয় জয়নাল মিয়া বলেন, রেললাইনের জন্য যখন সরকারী লোকজন এই এলাকায় সিমানা পতাকা লাগিয়েছে তখন থেকেই এখানে ঘর-বাড়ি তুলছে একটি চক্র। স্থানীয়দের পাশাপাশি বিভিন্ন জায়গা থেকে লোকজন এসে জমির মালিকের সাথে সরকারী বিলের টাকা ভাগাভাগির কন্টাক্ট করে বড় বড় ঘর তুলছে।
আরেক স্থানীয় মালেক মিয়া বলেন, সরকারী লোকজনই দূর্নিতী করে আর নাম হয় শুধু আমাগো। সরকারী অফিসের লোক পরিচয় দিয়া আমাগো কাছে আইসা ঘরবাড়ি তুলতে কইছে। সরকারী বিলের টাকার তিনভাগের দুই ভাগ আমাগো দিবো আর এক ভাগ তারা নিবো এই কথাই তারা বলছে। তাগো কেউ কিছু বলে না খালি যত দোষ আমাগো।
কাঁঠালবাড়ি ৯ নং ওয়ার্ড ইইপি সদস্য সাইদ বেপারী বলেন, এখানে রেললাইনের জন্য সরকার নতুন করে কিছু জায়গা অধিগ্রহন করবে এই খবর আমরা জানার আগে দালাল চক্র কিভাবে যেন খবর পেয়ে গেছে। তারা এই গোপন খবর পাওয়ার সাথে সাথেই জমির মালিকদের সাথে কন্টাক্ট করে ঘরবাড়ি তুলছে। আর এর কারনে সরকারের কোটি কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে। আমরা চাই সরকারী অফিসের এই গোপন খবর আর যেন দালাল চক্র না জানতে পারে। এ ব্যাপারে সরকারের কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত।
মাদারীপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সজল নূর বলেন, রেললইন সংযোগ সড়ক সম্পসারনের জন্য আমরা নতুন করে বেশ কিছু জায়গা অধিগ্রহনের কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। আমরা বিভিন্নভাবে জানতে পেরেছি কিছু অসাধু চক্র সরকারী মূনাফা লাভের আশায় অধিগ্রহনের জন্য নির্ধারিত জায়গায় অবৈধভাবে ঘরবাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মান করছে। ইতমধ্যেই আমরা বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছি আর বাকি স্থাপনাও উচ্ছেদ করার কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। আর নতুন করে কোন অবৈধ স্থাপনা যেন কেউ গড়ে তুলতে না পারে এ ব্যাপারে আমরা সচেষ্ট রয়েছি।
মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে মাদারীপুরে অনেকগুলো উন্নয়নমূলক কার্যক্রম চলছে। তার মধ্যে রেললাইন প্রকল্প একটি অন্যতম। যখন একটি প্রকল্পের প্রস্তাব আসে তখন আমাদের অফিস থেকে বা যে কোন মাধ্যমে জমির মালিকরা তথ্যটি জানতে পারে। তখনি এই অবৈধ ঘরবাড়ি, স্থাপনা তৈরির প্রবনতা শুরু হয়। তথ্য ফাঁসের এই বিষয়টি পুরোপুরি বন্ধ করা কখনোই সম্ভব নয়। এলাকায় গিয়ে কার্যক্রম শুরু করলে স্থানীয়রা তখনতো বিষয়টি এভাবেই জেনে যায়। আর তথ্য জানার অধিকারও তাদের আছে। তবে তথ্য পাওয়ার পর কেউ যেন অসদুপায় সরকারী টাকা লোপাট করতে না পারে এ ব্যাপারে আমরা ব্যাবস্থা গ্রহন করবো।

পদ্মা সেতুর সাথেই দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের বহুল প্রত্যাশিত রেললাইন নির্মানের লক্ষ্য নিয়ে বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে ঢাকা-ভাঙ্গা-যশোর রেল সংযোগ নির্মানের তোড়জোড় শুরু হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates