যা হলো শিবচরের সোহেল হত্যার রায় পর্যন্ত ঃদৃষ্টান্ত স্থাপন এক মায়ের! নিজের সন্তান ও ৩ ভাইকে নিয়ে গেলেন ফাঁসির কাষ্ঠে

Madaripur Shohel Mother-(Helana)

শিব শংকর রবিদাস , মোঃ আবু জাফর ও অপূর্ব দাস, সরেজমিন ঃ
শিবচরে এক ছেলের হত্যার বিচার করতে গিয়ে নিজ পেটের আরেক সন্তান ও আপন ৩ ভাইকে ফাঁসির কাষ্ঠে নিয়ে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন হেলেনা বেগম নামের এক মা। হেলেনা বেগমকে নিয়ে এখন মাদারীপুরসহ আশেপাশের জেলাগুলোতে আলোচনার ঝড়, চলছে চুলচেড়া বিশ্লেষন। ২০১৩ সালের ৯ আগষ্ট রাতে মামা বাড়িতে জোরপুর্বক থাকা ও বাজারের দোকানে বসা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ৩ মামা ও সৎ ভাই উপুর্যপরী কুপিয়ে হত্যা করে শিবচরের গার্মেন্টস ব্যবসায়ী সোহেল মল্লিককে (২৪)।
কি ঘটে ছিল সেই রাতে ঃ
ঘটনার দেড় বছর আগে ঢাকার আওয়ামীলীগ নেত্রী হেলেনা বেগম জেলার শিবচরের উত্তর বহেরাতলা ইউনিয়নের যাদুয়ারচর গ্রামে তার বাবার বাড়িতে একটি ঘর তুলে দেয় ছেলে সোহেলকে। এরপর থেকে মামার বাড়িতেই থাকতো সোহেল। কিন্তু ৩ মামা এর বিরোধিতা করে সোহেলকে বাড়ি থেকে চলে যেতে বলে। এনিয়ে এর আগে মামাদের সাথে সোহেলের মারামারি পর্যন্ত হয়। একই সময় সোহেলকে শিবচর বাজারে একটি গার্মেন্টসের দোকান দিয়ে দেয় তার মা। সোহেলের মা দোকানের দায়িত্ব দেয় সোহেল ও তার মেঝ ভাই মিজানকে। এক সপ্তাহ না পেরোতেই মামা মিজানকে দোকান থেকে বের করে দেয় সোহেল। সোহেলকে দোকান দিয়ে দেওয়ায় আগে থেকেই ক্ষিপ্ত ছিল হেলেনার আরেক ঘরের ছেলে আল-আমিন (সোহেলের সৎ ভাই)। মামা মিজানকে দোকান থেকে বের করে দেওয়ার পর বিরোধ চরম আকার ধারন করে। এর পর সোহেলের বড় মামা খালেক হাওলাদার, মেঝ মামা মিজান হাওলাদার, ছোট মামা শাহীন হাওলাদার ও সৎ ভাই আল-আমিন এক হয়ে সোহেলকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করে। সুযোগের অপেক্ষায় দিন গুনতে থাকে তারা।
হত্যার নৃশংসতা ঃ
২০১৩ সালের ৯ আগষ্ট রাতে ঘরে একা ঘুমিয়ে ছিল সোহেল। সুযোগ পেয়ে যায় হত্যাকারীরা। গভীর রাতে চুপিসারে সোহেলের ঘরে প্রবেশ করে ৩ মামা খালেক হাওলাদার, মিজান হাওলাদার, শাহীন হাওলাদার ও সৎ ভাই আল-আমিন। ঘুমন্ত অবস্থায় তারা সোহেলকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে একটি দুটি নয় অন্তত ১২ টি আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশ লেপে মুড়িয়ে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। এসময় নিহতের কাছে থাকা প্রায় ৯০ হাজার টাকা, ২ টি মোবাইল সেট ভাগ করে নেয় ঘাতকরা।
মামলার গতিবিধি ঃ
হত্যাকান্ডের পরদিন ১০ আগষ্ট নিহত সোহেলের মা হেলেনা বেগমের কঠোর ভূমিকায় সোহেলের বাবা সিদ্দিক মল্লিক বাদী হয়ে ওই চার জনকে আসামী করে শিবচর থানায় মামলা করেন। ৬ সেপ্টেমবর কুমিল্লার হোমনা থেকে প্রথম ছোট মামা শাহীন হাওলাদারকে গ্রেফতার করে। পরে একে এক চার আসামীকেই গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হওয়ায় আসামীরা সকলেই হত্যাকান্ডের দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয়।
যুগান্তকারী রায় ঃ
ঘটনার প্রায় ৫ বছর আইনের নানা চড়াই উৎরাই পেরিয়ে গত ১৪ মে মামলার রায় হয়। মামলার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখেন হেলেনা বেগম। এর ফলে রবিবার দুপুরে মাদারীপুর জেলা ও দায়রা জজ শরীফউদ্দিন আহমেদ নিহত সোহেলের মামা খালেক হাওলাদার, মিজান হাওলাদার , শাহীন হাওলাদার ও সৎ ভাই আল আমিনকে ফাঁসির আদেশ দেন।
এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য ঃ
স্থানীয় জলিল বলেন, নির্মম এ হত্যাকান্ডের পর থেকেই হত্যাকারীরা নিজের সন্তান ও ভাই হওয়া স্বত্বেও দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য হেলেনা বেগম রাত-দিন খেটেছেন। তিনি নিজের ছেলে ও ভাইদেরও ছাড় না দিয়ে দৃষ্টান্ত দেখালেন।
মা হেলেনা বেগম বলেন, আমার নিস্পাপ ছেলেকে ওরা নির্মমভাবে হত্যা করেছে। আমি এটি কোনভাবেই মেনে নিতে পারিনা। হত্যাকারী আমার ছেলে বা ভাই যাই হোকনা কেন। খুনি খুনিই। আদালত সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়ায় আমি আইনের কাছে কৃতজ্ঞ।
মাদারীপুর আদালতের পিপি এ্যাডভোকেট এমরান লতিফ বলেন, মামলার বাদী সিদ্দিক হলেও সার্বক্ষনিক খেটেছেন হেলেনা বেগম। তার বলিষ্ঠ ভূমিকার কারনেই তার নিজ ছেলে ও আপন ৩ ভাইয়ের সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান সহায়ক হয়েছে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় দেশের ইতিহাসে এ মামলার রায়টি একটি আলাদা অবস্থান নিয়ে থাকবে।
শিবচর থানার ওসি জাকির হোসেন বলেন, মামলাটি পরিচালনায় হেলেনা বেগমের ভূমিকা ছিল আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় দৃষ্ঠান্ত।

শিবচরে এক ছেলের হত্যার বিচার করতে গিয়ে নিজ পেটের আরেক সন্তান ও আপন ৩ ভাইকে ফাঁসির কাষ্ঠে নিয়ে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates