শিবচরে পদ্মা সেতুর অধিগ্রহন ঘিরেঃআবারো শত শত অবৈধ ঘর বাড়ি বাগান তৈরি করে কোটি কোটি টাকা লোপাটের পায়তারা

Shibchar Rehavilatation Elegal house-6Shibchar Rehavilatation Elegal house-2

সরেজমিন রিপোর্ট
পদ্মা সেতুর নদী শাষনের বালু অপসারনের লক্ষ্যে অধিগ্রহনের জন্য প্রস্তাবিত  শিবচরের কাঠালবাড়ি ইউনিয়নে যেন অবৈধ ঘর বাড়ি বাগান দোকান তৈরির হিড়িক পড়েছে। যে চরে তেমন কোন গাছ ছিল না অথচ সেখানে এখন বাগান ও বৃক্ষরাজী বিঘায় বিঘায়। সবকিছু প্রকাশ্যে অবাধে ঘটলেও সবাই যখন নিশ্চুপ ছিল তখনই স্থানীয় সংসদ সদস্যর কঠোরতায় প্রশাসন অভিযান শুরু করে ২০টি অবৈধ ঘর বাড়ি,খামার, গাছের বাগান উচ্ছেদ করা হয় ও পাশ^বর্ত্তী জেলা শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবা এলাকার ৩ দালালকে আটক করে। স্থানীয়রা এতে সন্তোষ প্রকাশ করলেও এখনো শত শত অবৈধ ঘর বাড়ি দোকানপাট খামার ও বিঘায় বিঘায় বাগান থাকায় অভিযানের গতি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন।
সরেজমিন একাধিক সূত্রে জানা যায়, সরকারের টাকা লুটপাট করা এ যেন রেওয়াজে পরিনত হয়েছে শিবচর। যখনই কোন প্রকল্পের জন্য সরকার অধিগ্রহন কার্যক্রম শুরু করে তখনই অসাধু দালাল চক্র সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে প্রস্তাবিত স্থানে অবৈধ ঘর বাড়ি দোকানপাট বাগান তৈরির হিড়িক পরে। এবার যেন সেই তৎপরতা আরো বেড়ে গেছে কয়েকগুন। পদ্মা সেতুর নদী শাষনের বালু অপসারনের লক্ষ্যে অধিগ্রহনের জন্য শিবচরের কাঠালবাড়ি ইউনিয়নের ৬টি মৌজায় অধিগ্রহনের জন্য প্রায় ১২ শ ২৭ একর জায়গা প্রস্তাব করে সেতু বিভাগ। এরপর কাঠালবাড়ি ইউনিয়নের বলেশ^র , চরচান্দ্রা, মাগুরখন্ড, কাউলিপাড়া, শাহাবাজনগরস, রনজিত খা এই ৬ মৌজায় যেন অবৈধ ঘর বাড়ি বাগান দোকান তৈরির হিড়িক পড়েছে। ইতোমধ্যে প্রস্তাবিত জায়গায় ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ৩ ধারার নোটিশ দেয়া হয় । এলাকাটি নদী ভাঙ্গন কবলিত হওয়ায় সহজেই অন্যান্য স্থানে আশ্রয় নেয়ারা দ্রুত ঘর বাড়ি গাছ গাছলা নিয়ে আশ্রয় নিয়েছে এখানে। সবচেয়ে বেশি বেপরোয়া বহিরাগত দালাল চক্র। দালাল চক্রটি অন্যান্য স্থান থেকে ইতোমধ্যেই পদ্মা সেতুতে ক্ষতিগ্রস্থ ঘর বাড়ি কিনে এসকল এলাকায় নির্মান করেছেন। দালাল চক্র প্রায় শুন্য চরাঞ্চলটিকে বাড়ি ঘরে গাছে গাছে ছেয়ে ফেলেছে। গত কয়েকদিন ধরে সেতু বিভাগ ও মাদারীপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের যৌথ তদন্ত শুরু হলেও ঘরবাড়ি দোকানপাট খাামার বাগান নির্মান হিড়িক লেগেই রয়েছে। সবকিছু প্রকাশ্যে অবাধে ঘটলেও সবাই যখন নিশ্চুপ ছিল তখনই স্থানীয় সংসদ সদস্য আওয়ামীলীগ সংসদীয় দলের সেক্রেটারি নূর ই আলম চৌধুরীর কঠোরতায় প্রশাসন অভিযান শুরু করে এ পর্যন্ত মাত্র ২০টি অবৈধ ঘর বাড়ি,খামার, গাছের বাগান উচ্ছেদ করে ও পাশ^বর্ত্তী জেলা শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবা এলাকার ৩ দালালকে আটক করে। এখনো আরো শত শত অবৈধ ঘর বাড়ি, দোকানপাট, খামার, বিঘায় বিঘায় বাগান থাকায় অভিযানের গতি নিয়ে অসন্তোষ স্থানীয়দের। স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় দালাল চক্রের এই অপতৎপরতায় অনেকটাই অসহায় স্থানীয় চরবাসি। অভিযান আরো জোড়ালো ও ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা আইডি কার্ড করার দাবী তাদের।
স্থানীয় হালিমা বেগম বলেন, অধিগ্রহনে জমি যাচ্ছে আমাদের। আমরা কোন নতুন ঘর তুলছিনা কিন্তু অন্য জায়গা থেকে কিছু মানুষ এসে টাকা পাওয়ার লোভে এই চরে ঘর-বাড়ি, শতশত বিঘা বাগান তৈরি করছে, কেউ কিছু বলছে না তাদের।
আরেক স্থানীয় ফারুক হাওলাদার বলেন, অধিগ্রহনের কথা শুনেই পাশ্চবর্তী শরিয়তপুরের জাজিরার নাওডোবা, বিক্রমপুরসহ বিভিন্ন এলাকার দালালরা এখানে এসে স্থানীয় অনেকের সাথে টাকা ভাগের কন্টাকের মাধ্যমে শত শত নতুন ঘর-বাড়ি, বিঘায় বিঘায় গাছের বাগান, হাঁস-মুরগীর খামার নির্মান করছে। প্রশাসন দেখেও তা না দেখার ভান করছে।
কাঁঠালবাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি বিএম আতাউর রহমান আতাহার বলেন, অধিগ্রহনের কথা শুনে সরকারী বিল পাওয়ার লোভে চরে বিভিন্ন লোকজন অবৈধ ঘর-বাড়ি নির্মান করছে। আমাদের সংসদ সদস্য নূর-ই আলম চৌধুরী বিষয়টি জানার পর এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আমাদের নির্দেশনা দিয়েছেন। আমরা প্রশাসনকে সহযোগিতা করছি।
কাঁঠালবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনউদ্দিন সোহেল বেপারী বলেন, আমি নিজে উপস্থিত থেকে পদ্মা সেতুর জন্য অধিগ্রহনকৃত জায়গা থেকে অবৈধ ঘর-বাড়ি উচ্ছেদে প্রশাসনকে সহযোগিতা করছি।
শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ জাকির হোসেন বলেন, অধিগ্রহনের কথা শুনে স্থানীয়দের সহায়তায় বহিরাগত দালাল চক্র সরকারের টাকা লোপাটের জন্য এখানে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মান করছে। আমরা এখান থেকে তিন দালালকে আটক করেছি। অভিযান অব্যাহত থাকবে।
শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইমরান আহমেদ বলেন, শিবচর উপজেলায় এখন প্রচুর জমি অধিগ্রহন চলছে। এখানে যখনি কোন জায়গা অধিগ্রহনের ঘোষনা হয় তখনি অবৈধ ঘর-বাড়ি, বাগানসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মানের হিড়িক পড়ে যায়। আমরা স্থানীয় সংসদ সদস্য নূর-ই আলম চৌধুরীর নির্দেশে বিবিএর সহায়তায় এলাকার বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা ধ্বংশ করেছি। দালাল চক্রের কয়েকজনকে আটক করেছি। এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। সরকারের একটি টাকাও আমরা নষ্ট হতে দেবো না।
মাদারীপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সৈয়দ ফারুক আহমেদ বলেন, মাদারীপুরের বিভিন্ন অধিগ্রহন চলমান আছে। অধিগ্রহনের ঘোষনা শুনেই কিছু অসাধু চক্র এ সকল এলাকায় অবৈধ ঘর-বাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মান করে। আমরা যৌথ তদন্তের সময় নতুন ঘর-বাড়ি, বাগানসহ বিভিন্ন স্থাপনা বাদ দিয়ে দেবো। অবৈধ কোন স্থাপনাই সরকারি বিল পাবে না।

পদ্মা সেতুর নদী শাষনের বালু অপসারনের লক্ষ্যে অধিগ্রহনের জন্য প্রস্তাবিত শিবচরের কাঠালবাড়ি ইউনিয়নে যেন অবৈধ ঘর বাড়ি বাগান দোকান তৈরির হিড়িক পড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates