শিবচরে নতুন পেয়াজ উত্তোলন শুরু, ভরা মৌসুমের আগেই আমদানি বন্ধের দাবী

Shibchar Orion Production Start-1

শিব শংকর রবিদাস , মোহাম্মদ আলী মৃধা ও মোঃ মনিরুজ্জামান মনিরঃ
পেয়াজ নিয়ে নৈরাজ্যের এসময়ে সুসংবাদ নিয়ে এলো  শিবচরের পেয়াজ চাষীরা। আগাম পেয়াজ উত্তোলন শুরু হওয়ায় শীঘ্রই পেয়াজের লাগাম টানা সম্ভব হবে বলে আশাবাদ কৃষিবিদদের। তবে আসছে পেয়াজ উত্তোলনের ভরা মৌসুমে বিদেশ থেকে আমদানি বন্ধের দাবী উঠেছে কৃষক পর্যায় থেকে। এদিকে পেয়াজের উর্ধ্বমুল্যের আশায় চলতি বছর উপজেলায় প্রায় দ্বিগুন উৎপাদন হয়েছে। ফলে ন্যায্যমুল্য পেতে কৃষকের আমদানি বন্ধের দাবীর সাথে একমত কৃষি কর্মকর্তারাও।
সরেজমিন জানা যায়, বর্তমানে পেয়াজ বাজারে কেজি প্রতি ১২০-১৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশী পেয়াজের ঝাঝ আরো বেশি। কিন্তু এ অঞ্চলে পেয়াজ সংরক্ষনাগার বা কোল্ড স্টোরেজ না থাকা ,সুদুরপ্রসারী পরিকল্পনার অভাব ও বাজার ব্যবস্থাপনার অভাবে মাত্র ৬-৭ মাস আগে উৎপাদন মৌসুমে এই পেয়াজই কৃষক ৮-১২ টাকায় বিক্রি করে নিস্ব হয়। অথচ পদ্মা আড়িয়ালখাসহ অসংখ্য নদ-নদী খাল বিল সমৃদ্ধ মাদারীপুরের শিবচরসহ বৃহত্তর ফরিদপুরের কৃষি জমিতে প্রতি বর্ষায় পর্যাপ্ত পলি পড়ে বাম্পার ও সুস্বাদু পেয়াজ উৎপাদন হয়। গত বছর মাদারীপুর জেলায় প্রায় ৪১ শ হেক্টর জমিতে পেয়াজ আবাদ হয়ে ৯০ হাজার মে.টন পেয়াজ উৎপাদন হয়। তার মধ্যে শুধুমাত্র শিবচর উপজেলাতেই পেয়াজ উৎপাদন হয় ৩৪ শ হেক্টর জমিতে। কিন্তু পচনশীল এ পন্য শুধুমাত্র সংরক্ষনের অভাবে পানির দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয় এ অঞ্চলের কৃষক। গত বছর উৎপাদন মৌসুমে খুচরা বাজারে পেয়াজের কেজি বিক্রি হয় ১২-১৫ টাকায়। মন প্রতি বিক্রি হয় ৫ থেকে ৬ শ টাকায়। পাইকারি বাজার হয়ে কৃষকের হাতে তা পৌছায় আরো কম দামে। অথচ বীজ,সার, শ্রমিকদের টাকা দিয়ে পেয়াজ চাষে মণ প্রতি কৃষকের খরচ হয় ৭ শ থেকে সাড়ে ৭ শ টাকা। তাই গত বছর অনেক কৃষককে মাঠেই পেয়াজ রেখে দিতে দেখা গেছে। চলতি বছর পেয়াজের উচ্চ মুল্য চলায় কৃষক বিপুল উৎসাহে আবাদ শুরু করেছেন। উচ্চ মুল্যের কারনে চলতি বছর কৃষক গত বছরেরও দ্বিগুনেরও বেশি জমিতে আবাদ শুরু করেছেন। কৃষি বিভাগ সারা জেলায় উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করেছেন প্রায় ৯ হাজার হেক্টর জমিতে। তার মধ্যে শিবচরেই এ পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে পেয়াজ আবাদ হয়েছে। এরইমাঝে গত এক সপ্তাহ ধরে শিবচরে নতুন আগাম মুড়িকাটা জাতের পেয়াজ উঠাতে শুরু করেছে চাষী। দামও পাচ্ছেন কেজি প্রতি ৬৫-৭০ টাকা । এইদামে সন্তুষ্ট কৃষক। তবে চিন্তার ভাজ এখনো কপালে। ভরা মৌসুমে আমদানির ধারা অব্যাহত থাকলে পেয়াজের দাম কমে গেলে এবার বাড়তি উৎপাদনে মাঠে মারা পড়বে কৃষক। সংরক্ষনাগার বা কোল্ড স্টোরেজ না থাকায় সংশয় আরো বেড়েছে। তাই পেয়াজ উত্তোলনের ভরা মৌসুম অর্থ্যাৎ একমাস পর জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে আমদানি বন্ধের দাবী কৃষকের।
বন্দরখোলা ইউনিয়নের তাহের শিকদারকান্দি গ্রামের চাষী সিরাজ বেপারী বলেন, গত বছর পিঁয়াজ চাষ করে এক লাখ টাকা লস হইছে। এই বছর আগাম চাষ করছি মুড়ি কাটা জাতের পিয়াজ। ফলনও ভাল হইছে। এখন পিয়াজ উঠানো শুরু করছি। বাজারে পিঁয়াজের দাম কেজি প্রতি ৬৫-৭০ টাকা পাইতাছি।
কৃষানী জোহরা বিবি বলেন, পিয়াজের দাম এহন যেমন আছে এমন যদি সারা বছর থাকে তাইলে আমরা বাঁচতে পারি। কিন্তু বিদেশ থিকা পিয়াজ আইসা দাম কমাইয়া দেয় এইডা বন্ধ করা উচিত।
আরেক কৃষক আলতাফ ফকির বলেন, আমাদের পেয়াজ উৎপাদন মৌসুমে বিদেশ থেকে পেয়াজ আমদানী বন্ধ করতে হবে আর আমাদের এলাকায় পেয়াজ সংরক্ষনাগার নির্মান করতে হবে। এটাই সরকারের কাছে দাবী জানাই।
শিবচর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এসএম সালাউদ্দিন বলেন, অনেক কৃষক এ বছর মুড়ি কাটা জাতের পিঁয়াজ চাষ করেছে। এখন পিয়াজ উত্তোলন করে বাজারে বিক্রি করে কৃষকরা ভাল মূল্য পাচ্ছে। এ অঞ্চলে ভাল মানের পিঁয়াজ ফলন হয়। তবে সংরক্ষনাগার না থাকায় কৃষকরা ক্ষতির শিকার হন। এ এলাকায় সংরক্ষনাগার নির্মান হওয়া প্রয়োজন।
মাদারীপুর কৃষি অধিদপ্তরের উপ পরিচালক কৃষিবিদ জিএম এ গফুর বলেন, এখন এ অঞ্চলে মুড়িকাটা জাতের পিঁয়াজ উত্তোলন শুরু হয়েছে। এতে এ অঞ্চলের বাজারে পিঁয়াজের মূল্যে প্রভাব পড়তে পারে। কিন্তু উৎপাদন মৌসুমে পেয়াজের দাম খুবই কম থাকায় কৃষকরা অনেক লোকসানে পড়েন। তাই উৎপাদন মৌসুমে পিঁয়াজ আমদানী বন্ধের জন্য কৃষকরা দাবী করছেন।

পেয়াজ নিয়ে নৈরাজ্যের এসময়ে সুসংবাদ নিয়ে এলো মাদারীপুরের শিবচরের পেয়াজ চাষীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates