অপহরনের ৭ দিন পর শিবচরে ৩য় শ্রেনীর ছাত্রের লাশ উদ্ধার, অপহরনকারী আটক

School student -Arrest School student -obaidul

সরেজমিন রিপোর্টঃ
অপহরনের ৭ দিন পর শিবচরে ৩য় শ্রেনীর ছাত্র ওবায়দুলের লাশ  উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পাশের বাড়ির মারুফ চোকদার নামের মূল হোতাকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ মারুফের স্বীকারোক্তি মতে লাশটি পদ্মা নদীর বিলের একটি মাছের ঘের থেকে আজ ভোরে উদ্ধার করে।
পুলিশ জানায়, গত ১২ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জেলার শিবচরের মাদবরচর খাড়াকান্দি গ্রাম থেকে খাড়াকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেনীর ছাত্র ওবায়দুল চোকদার নিখোজ হয়। শিশু ওবায়দুল নিখোজের পরদিন বুধবার সন্ধ্যায় একটি মোবাইল নম্বর থেকে ওবায়দুলের বাবা রতন চোকদারকে ফোন দিয়ে মুক্তিপনের ১লক্ষ টাকা দাবী করে। এরপর থেকেই ওই ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। পরে গত ১৫ ডিসেম্বর পরিবারটির পক্ষ থেকে শিবচর থানায় জিডি করা হলে কললিস্টেও সুত্র ধরে পুলিশ কৌশলে পাশের বাড়ির মারুফ চোকদার নামের যুবককে রবিবার রাতে আটক করেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদে অপহরনের কথা স্বীকার করে এবং তার দেয়া তথ্যানুযায়ী আজ ভোর রাতে মাদবরেরচর এলাকার পুরাতন জাহাজঘাট এলাকার নদীর মধ্যে মাছের ঘের থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।
গত মধ্যরাতে মাছ ধরার নদীর ঘেরের মধ্য থেকে লাশটি উদ্ধার করে। নিহত ওবায়দুর উপজেলার মাদবরের চর ইউনিয়নের পূর্ব খাড়াকান্দি গ্রামের রতন চোকদারের ছেলে। সে খাড়াকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেনির ছাত্র ছিল। পদ্মা সেতুর অধিগ্রহনের ক্ষতিপূরনের টাকার ভাগাভাগির দ্বন্দ্ব নিয়ে মারুফ, তার বাবা ফরিদ চোকদার ও মোহাম্মদ মুন্সী এ হত্যাকান্ড ঘটায় বলে আটক মারুফ পুলিশকে নিশ্চিত করেছে।
আটক মারুফ বলে, ৭ দিন আগে সন্ধ্যায় ওবায়দুলকে আমি পদ্মার পড়ে নিয়ে গিয়ে গলা টিপে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দেই। এসময় আমার সাথে আমার বাবা ও চাচাতো এক চাচা ছিল। পরে দুই দিন পর ওবায়দুলের বাবাকে ফোন করে মুক্তিপন বাবদ টাকা চাই। ওবায়দুলের বাবার সাথে আমাদের পূর্বের বিরোধ ছিল।
শিবচর থানার এসআই আলমগীর হোসেন কয়েকদিন আগে ওবায়দুল নিখোজ হওয়ার দু দিন পরে ওর বাবা থানায় সাধারন ডায়রি করে। আমরা ঘটনার তদন্তকালে মোবাইলের কললিস্টের সূত্র ধরে মারুফকে আটক করেছি। তার দেওয়া তথ্যমতে পদ্মা নদীর একটি মাছের ঘের থেকে ওবায়দুলের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মারুফ ওবায়দুলকে অপহরনের পর হত্যার কথা স্বীকার করেছে।
শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ জাকির হোসেন বলেন, পদ্মা সেতুর বেড়িবাঁধে অধিগ্রহনের জমির টাকা নিয়ে ওবায়দুলের বাবা ও মারুফের বাবার বিরাধ ছিল। এ বিরোধের জের ধরেই মারুফ ও তার সহযোগিরা ওবায়দুলকে হত্যা করে লাশ পদ্মা নদীতে ফেলে দেয় বলে সে স্বীকার করেছে। এ ব্যাপারে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

অপহরনের ৭ দিন পর শিবচরে ৩য় শ্রেনীর ছাত্র ওবায়দুলের লাশ করেছে উদ্ধার পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates