কাশফুলের দোলায় অপরুপ পদ্মা সেতুর কর্মযজ্ঞঃমুগ্ধ কর্মরত বিদেশীরাও, পর্যটনে নতুন সম্ভাবনা

Shibchar Padma Bridge Area Kashfull-4

সরেজমিন রিপোর্টঃ
“ আজ ধানের ক্ষেতে রৌদ্র ছায়ার লুকোচুরি খেলা, নীল আকাশে কে ভাসালো সাদা মেঘের ভেলা”। শরৎ শেষ হয়ে প্রকৃতির বুকে বইছে হেমন্তের সুবাস। রৌদ্্র ছায়ার এই অন্তহীন খেলার মাঝেই হেমন্তের বাতাসে দোল খাচ্ছে সাদা সাদা কাশফুল। কবির কবিতার মতই সুভ্রতার প্রতীক এই কাশফুলের সাদা মেঘের ভেলায় সেজেছে শিবচরের চরাঞ্চল। পদ্মা নদী জুড়ে বিস্তৃর্ন চরজুড়ে যেন ভাসছে সাদা মেঘের ভেলা। এরই মাঝে পদ্মা সেতুর কর্মযজ্ঞ যেন নতুন মাত্রা যোগ করেছে। বহুল প্রত্যাশিত সেতুতে কর্মরত বিদেশীরাও বিমোহিত প্রকৃতির এই অপার সৌন্দর্য্য।ে পদ্মার এই অপরুপ সাজে কর্মচাঞ্চল্য বেড়েছে দেশী বেদিশী কর্মরতদের। তাইতো ভ্রমনপিপাসুদের ভীড় বাড়ছে পদ্মা সেতু এলাকা ও চরাঞ্চলে। শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি রুটের ফেরি,লঞ্চ ও স্পীডবোট যাত্রীরা রোমাঞ্চিত একই সাথে প্রকৃতির এই রুপের সাথে পদ্মা সেতুর বাস্তবায়নের বিরল দৃশ্য অবলোকনে। সবমিলিয়ে নতুন এক পর্যটন সম্ভাবনা পদ্মার বুকজুড়ে।
সরেজমিন পদ্মা নদী ঘুরে দেখা যায়, নীল আকাশে ভাসছে সাদা মেঘের ভেলা। মাত্র কয়েকদিন আগেও যে ধূমল, কালো গম্ভীর মেঘ ছেয়ে থাকত দিক চক্রবাল, তারা আর নেই। সুনীল অন্তরীক্ষে ভেসে বেরাচ্ছে শিমুল তুলার মতো ছেঁড়া ছেঁড়া মেঘের টুকরা। নিচে একে বেঁকে চলা নদী, তীরে ও চরজুড়ে সাদা কাঁশবন। নদীতে চলছে ছোট-বড় নৌকাÑআবহমান বাংলার এই রূপ শিবচরে পদ্মা, আড়িয়াল খাঁ নদের বাঁকে বাঁকে। শরৎ শেষ হয়ে প্রকৃতিতে বইছে হেমন্তের দোলা। বাংলার প্রকৃতি এখন শুধু সুন্দরই নয়, ¯িœগ্ধ কোমলও। চারদিকে সাদা কাশফুলে ভরপুর এখন পদ্মা নদীর উভয় তীর ও তীরবর্ত্তী চরাঞ্চল। শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি রুট ব্যবহারকারীরা প্রকৃতির অপরূপ দৃশ্যের সাথে এখন অনেকেই পরিচিত । শহরের কোলাহল ছেড়ে পদ্মার বুকে আসলেই যেন হারিয়ে যায় সবাই এক অপার সৌন্দর্যের রাজ্যে। এরমাঝে পদ্মা সেতুর প্রথম স্পাম উত্তোলনসহ অন্যান্য পিলারের কাজ জোরেসোরে চলমানসহ কর্মযজ্ঞ যেন নতুন মাত্রা যোগ করেছে। বিশাল বিশাল ক্রেনসহ অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির ঝনঝনানি সাথে প্রকৃতির সাজ সবমিলিয়ে নতুন এক পর্যটন সম্ভাবনা পদ্মার বুকজুড়ে। বহুল প্রত্যাশিত সেতুতে কর্মরত বিদেশীরাও বিমোহিত প্রকৃতির এই অপার সৌন্দর্য্য।ে পদ্মার এই অপরুপ সাজে কর্মচাঞ্চল্য বেড়েছে দেশী কর্মরতদের। এছাড়াও শিবচরের অন্যান্য নদী তীরগুলোজুড়ে শতশত একর জমিজুড়ে কাশফুলের সাদা শুভ্র। তাই তো বিভিন্ন শহর থেকেও এই মনোরম দৃশ্য দেখার জন্যে আসছেন অনেকে ।
পদ্মা সেতুতে কর্মরত এক বিদেশী বলেন, বিরতিহীনভাবে পদ্মা সেতু কাজ দ্রুত গতিতে চলছে। একটি স্পাম বসানো হয়েছে, বাকিগুলোও বসানো হবে। এখন প্রকৃতি অনেক ভালো। চারদিকে সাদা সাদা কাঁশ ফুল এখন পদ্মা নদীকে আলাদা রুপে সাজিয়েছে । আমাদের খুব ভালো লাগছে।
পদ্মা সেতুতে কর্মরত জাহিদ বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে পদ্মা সেতুতে কাজ করছি। এ বছর অনেক বৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু এখন হেমন্তের প্রথম দিকে এসে বৃষ্টি কমে গেছে। প্রকৃতি এখন খুবই সুন্দর লাগছে। নদীর চারদিকে শত শত একর জমিতে কাঁশ ফুল ফুটেছে। এখানে কর্মরত বিদেশী ও আমরা সকলেই এই সৌন্দর্য উপভোগ করি। প্রতিদিন বিকেলে পদ্মার চরে অনেক লোক বেড়াতে আসে।
এ রুটের লঞ্চ যাত্রী হাসান আহমেদ বলেন, আজ অনেক দিন পর ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরছি। লঞ্চে চড়ে পদ্মা পাড়ি দেওয়ার সময় মনে হলো আমি কোন নৌবিহারে আছি। চারদিকে এত কাঁশ ফুল , এত সৌন্দর্য আমি আর কোথাও দেখিনি। আর সেই সাথে দেখলাম আমাদের প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুর প্রথম স্পাম। যেভাবে কাজ চলছে তাতে মনে হয় সময়ের সাথে সাথেই পদ্মা সেতু সম্পন্ন হয়ে যাবে।
মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, পদ্মা সেতু দৃশ্যমান হওয়াতে এই নৌরুটটি এখন আকর্শনীয় হয়ে উঠেছে। শরতের প্রথম থেকেই নদীর চারদিকে সাদা সাদা কাঁশফুল ফুটেছে। পদ্মা সেতু এলাকাটি এখন পর্যটন কেন্দ্রের মত হয়েছে। পদ্মা সেতুর কাজ ও কাঁশফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে এখানে বহু লোকজন প্রতিদিনই বেড়াতে আসছে। এটা খুবই সুন্দর। পদ্মা সেতু যখন সম্পন্ন হবে তখন আরো অনেক লোক প্রতিনিয়ত এখানে আসবে। মাদারীপুর, শরীয়তপুরসহ দক্ষিনাঞ্চলের অনেক উন্নয়ন হবে।

সাদা মেঘের ভেলায় সেজেছে শিবচরের চরাঞ্চল। পদ্মা নদী জুড়ে বিস্তৃর্ন চরজুড়ে যেন ভাসছে সাদা মেঘের ভেলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates