স্বপ্ন স‌ত্যি,পদ্মা সেতুর পিলারের ওপর বসেছে প্রথম স্প্যান

padma bridje spam

পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান পিয়ার (Pier : স্তম্ভ বা পিলার) এর ওপর বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তের ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারের ওপর এ স্প্যান ওঠানোর কাজ শেষ হয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, মুন্সীগঞ্জ আসনের সাংসদ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম, পদ্মা সেতুর সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী, সেনাবাহিনীর দায়িত্বশীল কর্মকর্তা, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজের প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ সময় বলেন, পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান বাসানোর মাধ্য দিয়ে আকাশে কালো মেঘ কেটে দৃশ্যমান হয়েছে পদ্মা সেতু। সকল বাধা উপেক্ষা করে সেতুর কাজ এগিয়ে চলেছে। যথাসময়ই সেতুর কাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে। এ পর্যন্ত মূল সেতুর ৪৯ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। নদী শাসনের কাজ শেষ হয়েছে ৩৪ ভাগ। সেতুর কাজ থেমে নেই। যথাযথভাবেই সেতুর কাজ এগুচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরে খুব শিগগিরই এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন।

সেতুর কাজ যাতে এক মুহূর্তের জন্য বন্ধ না থাকে সেই জন্য তার নির্দেশে আজ সেতুর স্প্যান ওঠানো হয়েছে। সেতুর স্প্যানগুলোকে ধূসর রংয়ে রঙিন করে তোলা হয়েছে।

পদ্মা সেতুর সুপার স্ট্রাকচারবাহী ‘তিয়ান ই হাউ’ ভাসমান ক্রেন জাহাজ ইতিপূর্বে জাজিরা প্রান্তে পৌঁছে। স্প্যানটি এখন ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারের পাশে রাখা ছিল। এর আগে সোমবার দুপুরে এটি সেখানে পৌঁছে।

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের কুমারভোগ ওয়ার্কশপ থেকে চার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে গত রবিবার সন্ধ্যায় জাহাজটি প্রায় ৩ হাজার ২ শ টন ওজনের ৭বি নম্বর স্প্যানটি (সুপার স্ট্রাকচার) নিয়ে সেতুর ২৩ নম্বর পিলারের (খুঁটি) কাছাকাছি নোঙর করেছিল। পরে সোমবার সকালে রওনা হয়ে আরো প্রায় দুই কিলোমিটার দূরের ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারের কাছে পৌঁছে যায় দুপুরে। আজ বেলা ১১টার স্প্যানটি পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারে স্থাপন করা হয়েছে। প্রথমে এটি অস্থায়ী বেয়ারিংয়ে বসানো হয়েছে। পরে স্থায়ী বেয়ারিংয়ে স্থাপন করা হবে। গত রবিবার সকালে মাওয়ার কুমারভোগ কন্সট্রাকশন ইয়ার্ডের ওয়ার্কশপ থেকে প্রায় ৩৬ শ টন ক্ষমতার ভাসমান ক্রেনের ‘তিয়ান ই হাউ’ জাহাজটি রওনা হয়। ধূসর রংয়ের ১৫০ মিটার দীর্ঘ সেতুর এই স্প্যান টেনে নেওয়ার সময় কৌতূহলী মানুষের ভিড় পড়ে যায়। দূর থেকেই এই দৃশ্য অবলোকন করে আনন্দে উদ্বেল পদ্মাতীরের মানুষ।

সেতুর কাজে নিয়োজিত দেশি-বিদেশি প্রকৌশলী, কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ সবাই এখন মহাব্যস্ত। গত শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকালে তিন হাজার ২ শ টন ওজনের একটি স্প্যান ভাসমান ক্রেনে ওঠানোর কাজ শুরু হয়। রেললাইনের ন্যায় বিশেষ ক্রেনলাইনে করে এটি ওয়ার্কশপ থেকে নদীতীরে নেওয়া হয়। পরে সন্ধ্যায় এটি ভাসমান ক্রেনে ওঠানো সম্ভব হয়। দিনভর বিশাল এ স্প্যান ওঠানো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করেন বিশেষ কর্মীরা। এর আগে স্প্যানটি রং সম্পন্ন করে বৃহস্পতিবার রংয়ের ওয়ার্কশপ থেকে এটি বের করা হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় স্প্যানটি ভাসমান ক্রেনের সঙ্গে ঝুলন্ত রশি দিয়ে বাঁধা হয়। ৩৬ শ টন ধারণক্ষমতার এ ভাসমান ক্রেন স্প্যানটি টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারে। রবিবার এ ভাসমান ক্রেনটি (জাহাজ) এ স্প্যান নিয়ে রওনা হয়। রাতে এটি ২৩ নম্বর পিলারের কাছে নোঙরে ছিল। সোমবার সকালে এটি ফেরি চ্যানেল ক্রস করে। সোমবার দুপুর নাগাদ এটি পৌঁছে যায় জাজিরা প্রান্তের ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারের কাছে। ইতিমধ্যে খোলা হয়েছে পিয়ারের শাটার। তাই পিয়ারটি এখন সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীদের কাছ থেকে জানা যায়, প্রথম স্প্যানটি স্থাপনের পর দ্রুততম সময়ের মধ্যে অন্যান্য স্প্যানও ওঠানো শুরু হবে। এখন ৩৭ থেকে ৪২ নম্বর পিয়ার সম্পন্ন পর্যায়ে। ৩৯ নম্বর পিলারে খুঁটি উঠছে। ৪০ নম্বর পিয়ারের পাইলের ওপর বেইজ ঢালাই চলছে আর ৪১ নম্বর পিলারের পাঁচটি পাইল বসেছে। বাকি পাইলটিও এখন বাসানোর কাজ চলছে। এ ৪১ নম্বর পাইল বসাতে গিয়েই কয়েকবার হ্যামার বিকল হয়। তবে সব চ্যালেঞ্জ সফল হওয়ার পর এখন ৪১ নম্বর পিয়ারও সম্পন্ন হতে যাচ্ছে। এ ছাড়া তীরের ৪২ নম্বর পিয়ারে পাইলের ওপর বেইজ করা হচ্ছে।

জাজিরা প্রান্তে ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিয়ারের কাজ ১৭ সেপ্টেম্বর শেষ হয়েছে। গত শনিবার এই দুই পিয়ার হতে শাটার খোলা শুরু হয়। রবিবার তা শেষ হয়েছে। তাই পদ্মা সেতুর পিয়ার এখন পরিপূর্ণভাবে দেখা যাচ্ছে। দুই পিয়ারের ওপর যে স্প্যান বসানো হবে তার কাজও শেষ পর্যায়ে এখন। এরপরই শেষ হবে ৩৯ ও ৪০ নম্বর পিয়ারের কাজ। এ চারটি পিয়ারের ওপর তিনটি স্প্যান বসবে। স্প্যানের মাঝ বরাবর নিচের লেনে চলবে ট্রেন। ওপরে কংক্রিটের চার লেনের সড়কে চলবে গাড়ি।

২০১৫ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণকাজ শুরু হয়। এ পর্যন্ত প্রকল্পের প্রায় ৪৭ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। সেতুতে মোট ৪২টি পিয়ার থাকবে। এর মধ্যে ৪০টি পিয়ার নির্মাণ করা হবে নদীতে। দুটি নদীর তীরে। নদীতে নির্মাণ করা প্রতিটি পিয়ারে ছয়টি করে পাইলিং করা হয়েছে, যার দৈর্ঘ্য গড়ে প্রায় ১২৭ মিটার পর্যন্ত। একটি পিয়ার থেকে আরেকটির দূরত্ব ১৫০ মিটার। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুতে দুটি পিয়ারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্পে ব্যয় হবে ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। আগামী বছরের ডিসেম্বরে কাজ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রকৌশলীরা জানান, নদীতে মূল সেতুর এখন ৫৫টি পাইল সম্পন্ন হয়ে গেছে। এ ছাড়াও বটম অবস্থায় রয়েছে আরো ২২টি পাইল। এ ছাড়া জাজিরা প্রান্তে সংযোগ সেতুর ১৭৮টি পাইল বসেছে। এখানে আর মাত্র ১৫টি পাইল বাকি সংযোগ সেতুর (ভয়াডাক্ট) জন্য। আর মাওয়ায় এ পর্যন্ত সংযোগ সেতুর পাঁচটি পাইল বসেছে।

এদিকে পদ্মা সেতুর বিশেষজ্ঞ প্যানেল তিন দিনব্যাপী সরেজমিন সভা সম্পন্ন করে গুরুত্বপূর্ণ অবজারভেশন দিয়েছে। এতে অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীসহ দেশি-বিদেশি ১১ সদস্যের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের পুরো টিম অংশ নিয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের আব্দুল আউয়াল, জাপানের ইসিহারা ও ফুজিনো, কানাডার অস্টেন ফল্টি ও নেদারল্যান্ডসের কারবাজাল। গত শনিবার গুরুত্বপূর্ণ সভাটি শেষ হয়। এতে বেশিরভাগ সময়ই বাকি ১৪টি পিয়ারের ডিজাইন চূড়ান্তকরণ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এ-সংক্রান্ত বিষয়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ‘কাউই’ ও ‘রেন্ডেল’ বিস্তারিত রিপোর্ট উপস্থাপন করে। পরে অবজারভেশন দেওয়া হয় এ ব্যাপারে। তাই আশা করা যাচ্ছে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাকি ১৪ পিয়ারের চূড়ান্ত ডিজাইন অনুমোদন পাচ্ছে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান অবিরাম বিশেষ ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। সবার মধ্যেই বিশেষ এক উদ্যম লক্ষ করা গেছে। স্প্যান ওঠানোকে নিয়ে কর্মচাঞ্চলতা বেড়ে গেছে অনেকগুণ।

পদ্মা সেতু সাজতে যাচ্ছে ধূসর রংয়ে। তাই ধূসর রঙের ‘৭এ’ নম্বর স্প্যানটি বসার অল্প সময়ের পরই বসবে পরেরটি। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ‘৭বি’ নম্বর স্প্যানটির ফিটিং সম্পন্ন রয়েছে। এটিও শিগগিরই রং করা শুরু হবে। কারণ অক্টোবরের শেষ দিকে এ স্প্যানটি বসবে ৩৮ ও ৩৯ পিয়ারে। ইতিমধ্যেই ৩৯ নম্বর পিয়ারের কাজও দ্রুত এগিয়ে চলেছে। শিগগিরই শেষ হবে এর কাজ।

পদ্মা সেতুর দায়িত্বশীল প্রকৌশলীরা জানান, দুটি হ্যামার এখন হরদম পাইল বসাচ্ছে। জাজিরা ও মাওয়া উভয় প্রান্তে পাইল বসেছে। আগামী নভেম্বর মাসের শেষদিকে আরেকটি হ্যামার জার্মানি থেকে আসছে মাওয়ায়। এদিকে গত শুক্রবার সেতু ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতু প্রকল্পে আসেন। তিনি প্রকেল্পের অগ্রগতি নিয়ে প্রকৌশলীদের সঙ্গে আলোচনা করেন। পরে প্রকল্পের ভেতরই জুমার নামাজ আদায় করে ঢাকায় ফেরেন। এ ছাড়া স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলিও ইতিমধ্যে প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তিনি মাওয়া ঘুরে এসে বলেন, ‘বাঙালির গর্বের পদ্মা সেতু মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে। এটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসের ফসল, গোটা বাঙালির গর্ব। শেখ হাসিনার মতো সকলের ইচ্ছে থাকলে এ দেশে অনেক কিছুই করা সম্ভব। ‘

পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান পিয়ার (Pier : স্তম্ভ বা পিলার) এর ওপর বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates