প্রতিদিনই শিবচরের গ্রামে গ্রামে পাড়ায় পাড়ায় বসছে ’গলিয়া’ , গ্রামীন অর্থনীতির বর্নিল রুপ

Shibchar Golia-1

মিঠুন রায়, অপূর্ব দাস ও রিফাত ইসলামঃ
বাংলা নববর্ষের রং কতটা যে বর্নিল তা বুঝা যায় শিবচরের বিভিন্ন গ্রাম গঞ্জ ঘুরলেই। ১লা বৈশাখ ৬ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ও গ্রামে গ্রামে প্রতিদিনই চলছে স্থানীয় গলিয়া নামে খ্যাত গ্রামীন মেলা। বিশেষ করে ঐতিহ্যবাহী মন্দির, বিদ্যালয় ও মহল্লাভিত্তিক দিনব্যাপী এ গলিয়াখ্যাত গ্রামীন মেলাগুলোতে রয়েছে প্রানের স্পন্দন। দেশীয় ঐতিহ্যে পড়তে পড়তে ঠাসা সকল ধর্মালম্বীদের মিলনমেলা। দোকানীরা প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে গলিয়ায় অংশ নিচ্ছেন। উৎসবের রং গ্রামীন অর্থনীতিতে ।
সরেজমিন একাধিক সূত্রে জানা যায় , ১লা বৈশাখ থেকে শুরু হয়ে নির্দিষ্ট দিনগুলোতে বছরের পর বছর ধরে স্থানীয় ’গলিয়া’ নামক এ মেলাগুলো বসে আসছে । নতুন বছরের নির্দিষ্ট দিনগুলোতে শত শত দোকানী এসে মাটিতে বসে পড়ে। নেই ভাড়ার উৎপাত। এ বছরের প্রতিটি গলিয়াতে হাজার হাজার দর্শনার্থী ও ক্রেতার ভীড় দেখা যাচ্ছে। বছরের এ সময়টাতে অনেকেই তাদের প্রয়োজনীয় দ্রব্য কিনে রাখেন। কারন হরেক রকমের সামগ্রী পাওয়া যায় গলিয়ায়। মাটির জিনিস, বাশ বেতের সামগ্রী, খেলাধুলার, খাবার সামগ্রী থেকে সকল প্রকার সামগ্রীই উঠছে গলিয়াগুলোতে। ধর্ম বর্ন নির্বিশেষে ভীড়ও চোখে পড়ার মতো। উপজেলার বাবুবাড়ি, ঠাকুর বাজার কালাচান মন্দির, গোবিন্দ বাড়ি, কালী বাড়িসহ অর্ধ শতাধিক স্পটে মাসব্যাপী গলিয়া বসবে। একমাস ধরে বিভিন্ন স্থানে আয়োজিত গলিয়ার উপরই গ্রামীন অর্থনীতি অনেকটা নির্ভরশীল তা ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভীড় দেখেই বোঝা যায়। স্বল্প মুল্যে হরেক রকমের বাহারি জিনিস পেয়ে একদিকে খুশি ক্রেতারা অপরদিকে ক্রেতাদের উপস্থিতিতে পর্যাপ্ত বেচাকেনায় খুশি বিক্রেতারাও। দেশীয় হারিয়ে যেতে বসা খেলাধুলা দেখেও মিলছে প্রানের স্পন্দন।

Shibchar Golia-2
গলিয়ায় আসা দর্শনার্থী বজলুর রহমান বলেন , ছোটবেলা বাবার সাথে গলিয়ায় বেড়াতে আসতাম । আজ স্ত্রী-সন্তান নিয়ে এসেছি । গলিয়ায় ঘুরছি দেশীয় খাবার খাচ্ছি । আধুনিকতার ছোঁয়ায় গ্রাম বাংলার এই ঐতিহ্যবাহী গলিয়া যেন হারিয়ে না যায় এটাই আমার দাবী ।
আরেক দর্শনার্থী সুরভী আক্তার বলেন , প্রতিবছর গলিয়ায় বেড়াতে আসি শুধু একটি কারনে তা হলো শুধুমাত্র গলিয়াতেই দেশীয় তৈরি বিভিন্ন প্রকার খাবার , বাঁশ , বেত ও কাঠের তৈরি বাহারী রকমের সামগ্রী পাওয়া যায় ।
বিক্রেতা আলমাস শেখ বলেন , সারা বৈশাখ মাস জুড়ে এলাকার বিভিন্ন জায়গায় গলিয়া হয় । এসব গলিয়ায় আমাদের বিক্রিও অনেক ভাল হয় ।
মাদারীপুর সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আনোয়ার হোসেন ভূইয়া বলেন , গলিয়া খ্যাত এ সকল গ্রামীন মেলায় প্রচুর লোকের সমাগম হয় । এ সকল মেলায় শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মেলা গুলোতে বিপুল সংখ্যক আইন শৃংখলা বাহিনী নিয়োজিত করা হয়েছে । কেউ কোন প্রকার বিশৃংখলা সৃষ্ঠি করলে কঠোর ব্যাবস্থা নেওয়া হবে ।

১লা বৈশাখ ৬ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ও গ্রামে গ্রামে প্রতিদিনই চলছে স্থানীয় গলিয়া নামে খ্যাত গ্রামীন মেলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates