৬৯ এর ১ ফেব্রুয়ারী ঃ গণ অভ্যুত্থানে শহীদ মহানন্দ সরকারের আত্মত্যাগের কথা ভুলতে বসেছে বৃহওর ফরিদপুরবাসী

 

69

নিত্যানন্দ হালদারঃ
১৯৬৯এর গণঅভ্যুত্থানে শহীদ মহানন্দ সরকারের মহান আত্মত্যাগের কথা ভুলতে বসেছে বৃহওর ফরিদপুরবাসী। ১৯৬৯সালের ১লা ফেব্রুয়ারী অগ্নিঝরা দিনে মহানন্দ সরকার বৃহওর ফরিদপুর জেলার বর্তমানে গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার জলিরপাড়ে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে টোল অফিস (পুলিশ ফাড়ি) ঘেরাও করার সময় পাকিস্তানি পুলিশের গুলিতে নির্মমভাবে শহীদ হন।তখন তিনি ছিলেন মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার খালিয়া রাজারাম ইনস্টিউশনের অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র। কিশোর এ বীরের গৌরবগাথা স্মৃতি ধরে রাখার জন্য দীর্ঘ ৪৭ বছর পার হলেও আজো কোন স্মৃতি সৌধ নির্মিত হয়নি।তাকে দেয়া হয়নি মরনোত্তর উপযুক্ত কোন রাষ্ট্রীয় সম্মাণ।প্রতি বছর ১ ফেব্রুয়ারী শহীদ মহানন্দ সরকারের পৈত্রিক নিবাস রাজৈর উপজেলার খালিয়া ইউনিয়নের পলিতা গ্রামের বাড়িতে এ উপলক্ষ্যে মহানন্দ সরকারের আত্মীয়স্বজন ও পাড়া প্রতিবেশিদের আর্থিক সহায়তায় কিছু ইট বালু দিয়ে শহীদ মিনার তৈরি করে শহীদ মহানন্দের স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে এলাকাবাসী শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং স্মরণ সভা, পদাবলী কীর্তন ও কবিগানের আয়োজন করা হয় ।
এ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী জলিরপাড় জে. কে .এম. বি মল্লি¬ক হাই স্কুলের প্রাক্তণ শিক্ষক ও প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা জগদীশ বিশ্বাস ও ঢাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড.অরুণ কুমার গোস্বামী জানান, ১৯৬৯এর গণআন্দোলনের সময় ছাত্র-জনতা জলিরপাড়ে আন্দোলন শুরু করেন। কিন্তু তৎকালীন জলিরপাড় ইউপি চেয়ারম্যান নিত্যরঞ্জন মজুমদার প্রভাবশালী মুসলিমলীগ নেতা নওয়াব আলী মিয়া ও মুকুন্দ বালা তাদের আন্দোলন করতে বাঁধা দেন। এর প্রতি বাদে ১ ফেব্রুয়ারী জলিরপাড় স্কুলের শিক্ষক ও কমিউনিস্ট নেতা সত্যেন্দ্রনাথ বারুরীর নেতৃত্বে ছাত্র সমাজ বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয়।এদিন সকাল থেকে মাদারীপুরের খালিয়া,উল্ল¬াবাড়ী, মুকসুদপুরের বেদগ্রাম, ননীক্ষির,গোহালা, বানিয়ারচর থেকে প্রায় ২ হাজার ছাত্র জনতা জলিরপাড় বাজারে এসে জমায়েত হয়।তাদের সঙ্গে ছিলেন খালিয়া রাজারাম ইনস্টিটিউশনের অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র মহানন্দ সরকার। দুপুর ১২টার দিকে বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা তোমার আমার ঠিকানা -পদ্মা মেঘনা যমুনা, তোমার দেশ আমার দেশ বাংলাদেশ, বাংলাদেশ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার কর করতে হবে- ইত্যাদি শ্লে¬াগান দিয়ে মিছিল শুরু করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। ছাত্ররা পুলিশের বাঁধা উপেক্ষা করে মিছিল করতে গেলে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও লাঠিচার্জ করে।এ নিয়ে ছাত্র পুলিশের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ছাত্ররা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।পুলিশ জলিরপাড় টোল অফিসে আশ্রয় নেয় । দুপুরে ছাত্ররা আবার সংগঠিত হয়ে মিছিল বের করে টোল অফিস (পুলিশ ফাড়ি)এর পুলিশের ওপর হামলা চালায় মহানন্দ সরকার অফিসের জানালা ভেঙ্গে ফেললে পুলিশ এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ শুরু করে। এ সময় মহানন্দ সরকার গুলিবিদ্ধ হন।এতে ঘটনাস্থলে মহানন্দ সরকার নিহত হয় । পুলিশের গুলিতে উড়ে যায় নান্টু সরকারের ডান হাত । ঐ দিন গুলিবিদ্ধ হন অন্তত ১৫ জন। এ ঘটনার পর এলাকাবাসী ক্ষোভে ফেটে পড়েন। উত্তেজিত জনতা পুলিশের গানবোট পুড়িয়ে দেয় এবং পুলিশের উপর হামলা চালায়।আন্দোলন নিয়ন্ত্রণে আনতে গোপালগঞ্জ ও ফরিদপুর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ আসলে আ. রাজ্জাক মুন্সি, আঃ লতিফ কাজী, মনোহর বৈরাগী ও মিহির বৈরাগীকে গ্রেফতার করে। এতে পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। পুলিশের গুলিতে নিহত মহানন্দ সরকারের লাশ পোস্ট মর্টেমের জন্য গোপালগঞ্জ মর্গে নিয়ে যায় পুলিশ। পোস্ট মর্টেম শেষে মহানন্দের লাশ তার আত্মীয়স্বজনের নিকট ফেরত দেয়নি পুলিশ।মহানন্দ সরকার ছিলেন বৃহওর ফরিদপুর জেলার মধ্যে প্রথম শহীদ ছাত্র। দীর্ঘ ৪৭ বছরেও তার নামে বৃহওর ফরিদপুরে কোন স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়নি।দেয়া হয়নি রাষ্ট্রীয় কোন সম্মান।তার পরিবারের সদস্যদের দেয়া হয়নি শহীদ পরিবারের ক্ষোভ। মহানন্দের পরিবারের সদস্যরা ভালো নেই । শহীদ মহানন্দ ও তার পরিবারকে উপযুক্ত সম্মাণ দেয়ার এবং শহীদ মহানন্দের স্মৃতি রক্ষার্থে স্মৃতি সৌধ নির্মাণের দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী ও শহীদ মহানন্দের পরিবার ।

১৯৬৯এর গণঅভ্যুত্থানে শহীদ মহানন্দ সরকারের মহান আত্মত্যাগের কথা ভুলতে বসেছে বৃহওর ফরিদপুরবাসী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Free WordPress Themes - Download High-quality Templates